এয়ার ইন্ডিয়া বিলগ্নিকরণ: কী দিচ্ছে সরকার?

এয়ার ইন্ডিয়া বিলগ্নিকরণ: কী দিচ্ছে সরকার?

ভারত সরকার দ্বিতীয়বারের জন্য এয়ার ইন্ডিয়ার বিলগ্নিকরণ প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এর আগেরবার ২০১৮ সালে এরকম চেষ্টা হয়েছিল। সেবার কোনও সাড়াই পাওয়া যায়নি। গতবার বিলগ্নি পরিকল্পনা অনুসারে কেন্দ্র প্রাথমিকভাবে জানতে চেয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া, এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস এবং এয়ার ইন্ডিয়া- স্যাটস -এর অংশীদারি কেনার ব্যাপারে কাদের আগ্রহ রয়েছে। সরকার তাদের অফারের ব্যাপারে কিছু বদল ঘটিয়েছে

এয়ার ইন্ডিয়া: ১০০ শতাংশ শেয়ার বিক্রি

অতীব তাৎপর্যপূর্ণভাবে সরকার এবার এয়ার ইন্ডিয়ার ১০০ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করতে চাইছে, আগের বার তা ছিল ৭৬ শতাংশ। পরিদর্শকদের মতে সরকারের ন্যূনতম অংশীদারিত্বও সম্ভাব্য ক্রেতাদের নিরুৎসাহ করে দেয়। যদিও সরকারি সূত্র বলছে, তাদের ২৪ শতাংশ শেয়ার রাখার পিছনে যে ভাবনা ছিল, তা হল বাকি ৭৬ শতাংশ বিক্রি করলেই বিমান কোম্পানিতে সরকারের শেয়ারমূল্য বাড়বে, যা তারা পরে কোন এক সময়ে বিক্রি করে দেবে।

এয়ার ইন্ডিয়ার ঋণ পরিস্থিতি

এখন যদি কেউ এয়ার ইন্ডিয়া কিনতে যায়, তাহলে তাকে এয়ার ইন্ডিয়ার মোট ৬০,০৭৪ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে ২৩,২৮৬ কোটি টাকার ঋণের দায়িত্ব নিতে হবে। আগের বার যে শর্ত দেওয়া হয়েছিল, তাতে সম্ভাব্য ক্রেতাকে ৩৩,৩৯২ কোটি টাকার ঋণ ও বর্তমান দায় নেবার কথা ছিল। ওয়ার্কিং ক্যপিটাল ও অন্য এয়ারক্র্যাফট বহির্ভূত ঋণ সরকারই বহন করবে।

এয়ার ইন্ডিয়ার সম্পত্তি

নতুন মালিক এয়ার ইন্ডিয়ার ১২১টি বিমান ও এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের ২৫টি বিমান পাবেন। এর মধ্যে চারটি বোয়িং ৭৪৭-৪০০ জাম্বোজেটের হিসেব ধরা নেই। এগুলি যাবে অ্যালায়েন্স এয়ারের কাছে, যা বর্তমান লেনদেনের মধ্যে ধরা নেই। তবে শেষবারের মতই এয়ার ইন্ডিয়া সম্প্রতি যে সম্পত্তি ব্যবহার করছে, সেই নরিম্যান পয়েন্ট বিল্ডিং ও নয়া দিল্লির কনট প্লেসে সংস্থার সদর দফতর সরকার নিজের কাছেই রাখবে।

আরও খবর
Loading...