কঙ্গনা রনৌতকে ওরা হিংসে করে!

স্বজনপোষণ বিতর্কে সোনাক্ষী কঙ্গনাকে দুষেছেন। প্রশ্ন করেছেন স্টারকিডদের হয়ে। অথচ বলিউডের ‘কুইন’-কে সোনাক্ষির বাবার শত্রুঘ্নর সমর্থন করেন।
সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি রাখঢাক না করেই তিনি বলেন, “কঙ্গনার সাফল্যে সবাই ঈর্ষান্বিত।”

সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকেই বলিউডে স্বজনপোষণের কথা অব্যাহত। বলিউডের ‘দলবাজি’-র বিরুদ্ধে ‘আউটসাইডার’রা একে একে সরব।
এই অবস্থাতেই কঙ্গনা বোমায় বিদ্ধ আলিয়া, সোনম, সোনাক্ষীর মতো স্টারকিডরা।
শুধু স্টারকিডরাই নন কঙ্গনার রোষ থেকে ছাড় পাননি তাপসী-স্বরার মতো ‘আউটসাইডার’-রাও।

কঙ্গনার বক্তব্য, ওঁরা তাঁবেদারি করেন, স্তাবকতা করেণ কর্ণ ঘনিষ্ঠদের।
কঙ্গনার একের পর এক আক্রমণে যখন তাপসী- সোনাক্ষীরা একজোট হয়ে তাঁকে দুষেছেন ঠিক সেই সময়েই মেয়ের বিপরীতে গিয়ে শ্ত্রুঘ্নর বক্তব্য, “লোকে কঙ্গনা সম্পর্কে খারাপ কথা বলেন যা খুবই লজ্জার ব্যাপার।
ও কি আপনাদের থেকে কোনও সাহায্য চেয়েছে? পয়সা চেয়েছে? তা হলে? যাঁরা ওর বিরুদ্ধে ক্রমাগত কথা বলে যান, তাঁরা আসলে ওর সাফল্যকে হিংসে করেন।”

শত্রুঘ্ন এখানেই থামেননি। তাঁর কথায়, “আমাদের সাহায্য ছাড়া, কোনও গ্রুপের অংশ না হয়ে, আমাদের কারও থেকে সাহায্য না পেয়েও ও জীবনে যা যা পেয়েছে তা সত্যিই অসাধারণ। কঙ্গনা একা একাই অনেক দূর গিয়েছে।
কাউকে ওর প্রয়োজন হয়নি। ওর এই সাহসিকতাকেই সবাই ভয় পান। হিংসে করেন।” শুধু তাই নয়, কর্ণের জনপ্রিয় টক শো ‘কফি উইথ কর্ণ’-এর উপরেও ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন অভিনেতা। এই সমস্ত পরিকল্পিত চ্যাট-শো’র জন্যই যে বলিউডে এত বিতর্ক সে কথা খুল্লামখুল্লা স্বীকার করে নিতেও একেবারেই আপত্তি নেই তাঁর।
যদিও সরাসরি কর্ণের নাম উচ্চারণ করেননি শত্রুঘ্ন। তাঁর জবানিতে ‘কফি উইথ কর্ণ’ বদলে হয়ে গিয়েছে ‘কফি উইথ অর্জুন’।
অভিনেতার কথায়, “আমাদের সময় এই সব কফি উইথ অর্জুন ছিল না। যত সব বিতর্ক, সমালোচনা সবই এই সব প্ল্যানড শো-র জন্য।’’

বাবা-মেয়ের এই বিপরীত অবস্থানে নেটাগরিকরা অবাক।
তাঁদের প্রশ্ন, কঙ্গনার প্রতি দু’জনের দু’রকমের মনোভাব সিনহা পরিবারের অন্দরেও কি প্রভাব ফেলতে পারে?
কঙ্গনার প্রতি শত্রুঘ্নর প্রকাশ্য সমর্থন সোনাক্ষীর কেরিয়ারেও কি চাপ হয়ে দাঁড়াবে? নেটাগরিকদের একাংশের প্রশ্ন এমনটাই।

যদিও বাবার মন্তব্যে আপাতত সোনাক্ষী নীরব। তাঁকে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে এড়িয়ে গিয়ে সোনাক্ষীর বক্তব্য, টুইটার ছেড়ে তিনি ভাল আছেন, খুশি আছেন।
তাঁর কথায়: “সোশ্যাল মিডিয়া দিন দিন বিষাক্ত হয়ে যাচ্ছিল।’’
তবে ইনস্টাগ্রামে তিনি এখনও তিনি বেশ সক্রিয়। সাইবার বুলিংয়ের বিরুদ্ধে সম্প্রতি এক ক্যাম্পেনেও যোগ দিয়েছেন তিনি।

আরও খবর
Loading...