করাচিতে বিমান দুর্ঘটনায় বিষ্ময়করভাবে বেঁচে গেলেন এক যাত্রী

এ যেন সে রকমই ঘটনা। শুক্রবার বিকেলে পাকিস্তানের করাচি বিমানবন্দরের কাছে জনবহুল এলাকার মধ্যে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ভেঙে পড়ে। প্রাথমিক রিপোর্টে বলা হয়েছিল, বিমানের ১০৭ জন যাত্রীর মধ্যে কেউ বেঁচে নেই। কিন্তু পাকিস্তানের জিও টিভি সন্ধ্যার পর দাবি করে যে ব্যাঙ্ক অব পাঞ্জাবের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার জাফর মাসুদ ওই বিমানেই ছিলেন। তিনি বিষ্ময়কর ভাবে বেঁচে গিয়েছেন। তিনি চোট পেয়েছেন ঠিকই, কিন্তু ডাক্তাররা জানিয়েছেন, আশঙ্কার কারণ নেই।

লাহৌর বিমানবন্দর থেকে এদিন বিকেলে রওনা হয়েছিল পিআইএ-র ওই এয়ারবাস-এ৩২০ বিমানটি। করাচিতে জিন্না আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামার মিনিট খানেক আগে সেটি মিলারের মডেল টাউন এলাকায় ভেঙে পড়ে। অসামরিক বিমান কর্তারা জানিয়েছেন, বিমানের ল্যান্ডিং গিয়ারে যান্ত্রিক ত্রুটির জন্য দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে।

বিমান চালক ও ক্রিউ বাদ দিয়ে বিমানে ৯৯ জন যাত্রী ছিলেন। তাঁদের মধ্যে জাফর মাসুদ ছিলেন অন্যতম। পাকিস্তানের রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের এই শীর্ষ কর্তাকে দারুল সেহত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। জিও টিভি দাবি করেছে, হাসপাতল কর্তৃপক্ষ তাদের জানিয়েছে, মাসুদের চোট লেগেছে ঠিকই। কিন্তু তিনি বিপন্মুক্ত। তাঁর কোমরের হাড় ও কলার বোন ভেঙে গিয়েছে। তবে শরীরের কোথাও পুড়ে বা ছরে যায়নি। বাড়িতে মায়ের সঙ্গে তিনি ফোনে কথাও বলেছেন মাসুদ।

জিও টিভির সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, বিমানের পিছনের অংশটি আগে মাটিতে আঘাত করে। ফলে মাসুদ সামনের দিকের আসনে বসেছিলেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

আরও খবর
Loading...