করোনা সন্দেহে বাগেরহাটে দু’জন আইসোলেশনে

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে এক নারী ও কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মধ্য বয়সী এক পুরুষকে আইসোলেশনে রাখা হয়েঙ্ঘাত

শনিবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে ৪২ বছর ওই এক নারী জ্বর, সর্দি ও কাশি নিয়ে হাসপাতালে আসলে চিকিৎসকরা তাকে পর্যবেক্ষণের জন্য আইসোলেশনে পাঠান।

বাগেরহাট শহরতলীর ওই নারী কয়েকদিন ধরে জ্বর, সর্দি ও কাশিতে ভুগছিলেন। এদিকে ভোরে জ্বর, সর্দি ও কাশি নিয়ে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসলে তাকেও আইসোলেশনে নেন চিকিৎসকরা।

এর আগে বৃহস্পতিবার (০২ এপ্রিল) দুপুরে ২২ বছর বয়সী এক পুলিশ সদস্য জ্বর, সর্দি, কাশি নিয়ে হাসপাতালে আসলে তাকে আইসোলেশনে পাঠানো হয়। এই নিয়ে বাগেরহাট জেলা মোট তিনজন রোগী করোনা সন্দেহে আইসোলেশনে রয়েছেন।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, জ্বর, সর্দি ও কাশি থাকায় বাগেরহাট সদর হাসপাতালে এক নারী ও কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক পুরুষ রোগীকে পর্যবেক্ষণের জন্য আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হবে। পরীক্ষার পরে তাদের করোনার সংক্রমণ আছে কিনা তা জানা যাবে।

তিনি আরো বলেন, দেশে করোনাভাইরাসের রোগী সনাক্ত হওয়ার পর বাগেরহাট সদর হাসপাতালে তিনজন এবং শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুইজন আইসোলেশনে ছিলেন। তাদের শরীরে কোভিড-১৯ এর উপস্থিতি না থাকায় তারা সবাই নিজ নিজ বাড়িতে স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন।

আরও খবর
Loading...