চীনে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৪৮৩।

শুক্রবার হুবেই স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে হুবেই প্রদেশেই ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারান ২৪২ জন। বৃহস্পতিবার শুধু হুবেই প্রদেশে মারা গেছেন ১১৬ জন। সব মিলিয়ে করোনাভাইরাসে এ নিয়ে পুরো বিশ্বে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪৮৩ জনে।

নতুন করে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও চার হাজার ৮২৩ জন। শুধু হুবেইতেই আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫১ হাজার ৯৮৬ জনে।

ভাইরাসটি যাতে ছড়িয়ে না যায়, সে জন্য হুবেই প্রদেশকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে চীন। চীন সহ বাইরের বিশ্বের সাথে হুবেই প্রদেশের সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে ।

চীনের সব প্রদেশ সহ বিশ্বের ২৬ দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। চীনের বাইরে এ পর্যন্ত ৫২৪ জন আক্রান্ত শনাক্ত করা হয়েছে।হংকং, ফিলিপাইন ও জাপানে একজন করে মোট দুজন মারা গেছেন। চীনের বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে জাপান।সর্বোচ্চ আক্রান্তের তালিকায় জাপানের পরেই রয়েছে সিঙ্গাপুর। যেখানে ৪৭ জনের মতো করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৪ জন বাংলাদেশি বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) জানায়, সিঙ্গাপুরে আগের দুই বাংলাদেশি সহ মোট ৪ বাংলাদেশি নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।এই দুই রোগীর সংস্পর্শে ছিলেন এমন ১৯ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে সিঙ্গাপুর সরকার। এর মধ্যে ১০ জনই বাংলাদেশি।

এদিকে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে, শুধু তাদের হিসাব পরিসংখ্যানে ধরা হচ্ছে। তাই এর প্রকৃত হিসাব বের করা বা জানা খুবই কঠিন ব্যাপার,  প্রতিদিন যে পরিমাণ আক্রান্তের খবর আসছে, তাতে আক্রান্তের আসল খবর জানা যাচ্ছে না।এটিও আরেকটি আশঙ্কার কারণ কারণ ।

এদিকে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে নোঙর করা ডায়মন্ড প্রিন্সেস নামক প্রমোদতরীতে এখন পর্যন্ত ১৭৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে শনাক্ত করা হয়েছে। তিন হাজার ৭০০ যাত্রী নিয়ে বিলাসবহুল ওই প্রমোদতরীটি এখন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে।

আরও খবর
Loading...