NOVOAIR

ট্রাম্প সমর্থকদের উদ্দেশ্য ছিল ক্যাপিটল ভবন দখল ও নির্বাচিত প্রতিনিধিদের হত্যার

গত ৬ জানুয়ারি মার্কিন কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটলে ট্রাম্প সমর্থক ও কট্টর ডানপন্থিদের হামলা নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে।

ফেডারেল প্রসিকিউটররা আদালতে দেওয়া নথিতে বলেছেন, হামলাকারীদের উদ্দেশ্য ছিল ক্যাপিটল ভবন দখলে নেওয়া এবং নির্বাচিত কর্মকর্তাদের ওপর গুপ্তহত্যা চালানো।

আলজাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্য ছিল ক্যাপিটল দখলে নিয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের হত্যা করা। অ্যারিজোনার বিচার বিভাগের আইনজীবীদের লেখা নথিতে দাঙ্গাকারী জ্যাকব চ্যান্সলিকে এফ বি আইর জিজ্ঞাসাবাদে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

ক্যাপিটল ভবনে হামলায় ঘটনায় এখন পর্যন্ত শতাধিক মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ক্যাপিটলে বিদ্রোহে উসকানির দায়ে মার্কিন কংগ্রেসে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয়েছে।

বিদ্রোহে ট্রাম্প ও তার পরিবারের সদস্যদের ভূমিকাও তদন্ত করছেন প্রসিকিউটররা। ক্যাপিটল ভবনে হামলার পর ট্রাম্পর্কে অভিশংসন নিয়ে রিপাবলিকান পার্টিতে বড় বিভক্তি দেখা দিয়েছে।

এদিকে ওয়াশিংটনে ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসাবে জো বাইডেনের শপথ ঘিরে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মাথাপিছু ১৫ জন করে নিরাপত্তা সদস্য শপথ অনুষ্ঠানে আগাত অতিথিদের নিরাপত্তায় মোতায়েন করা হচ্ছে।

৩ দিন আগেই ক্যাপিটল হিলসহ ওয়াশিংটন ডিসির পুরো এলাকা ন্যাশনাল গার্ডের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। ফলে ওয়াশিংটন ডিসিতে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কেউ ওই এলাকায় যাচ্ছেন না। অনুষ্ঠানের নিরাপত্তায় ক্যাপিটল হিল, হোয়াইট হাউজসহ আশপাশের সব এলাকায় মেটাল ও কংক্রিটের কঠিন ব্যারিকেড স্থাপন করা হয়েছে।

ন্যাশনাল গার্ডের সশস্ত্র সেনাসদস্যরা শপথ অনুষ্ঠান ঘিরে সহিংসতা ঠেকাতে রাস্তায় টহল শুরু করেছেন। ওয়াশিংটনের জায়গায় জায়গায় নিরাপত্তা বেষ্টনী দেওয়া হচ্ছে। ধাপে ধাপে বন্ধ হচ্ছে সড়ক ও সাব-স্টেশনগুলো।

 

আরও খবর
Loading...