দিল্লিতে ভারী বর্ষণে প্লেন চলাচলে বিঘ্ন

দিল্লিতে ভারী বর্ষণে প্লেন চলাচলে বিঘ্ন।

ভারী বর্ষণের কবলে পড়েছে দিল্লি। এর প্রভাবে রাজধানী শহরটির বিমানবন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছে। পাশাপাশি যানজটের সৃষ্টি হয়েছে শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলোতেও।

বৃহস্পতিবার (০৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রায় অধাঘণ্টা ধরে ফ্লাইট ওঠা-নামা বন্ধ ছিল বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম থেকে জানা যায়।

একেতো বৃষ্টি, আরেকদিকে দুর্গাপূজা উপলক্ষে মানুষের ভিড়- সবমিলে বৃহস্পতিবার দিল্লির রাস্তায় দেখা দেয় প্রচণ্ড রকমের যানজট।

সংবাদমাধ্যম এএনআইয়ের বরাতে জানা যায়, ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা ৫৬ থেকে রাত ৮টা ২২ পর্যন্ত ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

যদিও চলমান এ ভারী বর্ষণের কারণে ফ্লাইট ওঠা-নামায় বিঘ্ন ঘটতে পারে বলে আগেই সতর্ক করেছিল  ভিস্তারা এয়ারলাইনস।

ভারতের পাঞ্জাব, উত্তরাখণ্ড, হারিয়ানা ও দেশের দক্ষিণাঞ্চলের অন্যান্য অংশে বৃষ্টিপাতের আগাম পূর্বাভাস দেয় বেসরকারি আবহাওয়া পূর্বাভাস সংস্থা স্কাইমেট।

বৃষ্টিপাতের কারণে শহরের তাপমাত্রা কমেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভারী বর্ষণের ছবি ও ভিডিও শেয়ার করেছেন স্থানীয়রা।

যদিও বিগত চার বছরের মধ্যে এবার সর্বনিম্ন বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানায় দেশটির আহাওয়া অধিদপ্তর। সংস্থাটি বলছে, ২০১৪ সালের পর এ বছর দিল্লিতে সর্বনিম্ন বৃষ্টিপাত হয়েছে।

দিল্লিতে ২০১৭ ও ২০১৮ সালে যথাক্রমে ৭৭২.৩ মিলিমিটার ও ৭৭০.৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। গড় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ৬৪৮.৯ মিলিমিটার হলেও ২০১৫ ও ২০১৬ সালে যথাক্রমে ৫১৫.৩ ও  ৫২৪.১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। অন্যদিকে, ২০১৪ সালে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল ৩৭০.৮ মিলিমিটার।

এ বছরের জুনে দিল্লিতে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল মাত্র ১১.২ মিলিমিটার। যা স্বাভাবিক পরিমাণ ৬৫.৫ মিলিমিটার থেকে ৮৩ শতাংশ কম। পরবর্তী মাস জুলাইয়ে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল ২১০.৪ মিলিমিটার। যা গড় পরিমাণ ২৭৬.১ মিলিমিটার থেকে ২৪ শতাংশ কম।

আরও খবর
Loading...