বিদায়ী বছরে গণপরিবহনে ৫৯ নারী ধর্ষণের শিকার

বিদায়ী ২০১৯ সালে গণপরিবহনে ৫২টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ৫৯ নারী ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। দেশের সড়ক, রেল ও নৌ পথে এসব ঘটনা সংগঠিত হয়। বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক প্রতিবেদনে এ চিত্র উঠে এসেছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ বিশ্লেষণ করে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, সড়ক পথে ৪৪টি, রেল পথে ৪টি ও নৌ-পথে ৪টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুসারে ৪৪টি ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং ৯৩ আসামি গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সব ঘটনার ১৬টি ধর্ষণ, ১২টি গণধর্ষণ, ৯টি ধর্ষণের চেষ্টা, ১৫টি যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটেছে।

২০১৭ সালে গণপরিবহনে চাঞ্চল্যকর রূপা গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় দেশবাসী ফুঁসে উঠলে জনগণের তীব্র প্রতিবাদের কারণে স্বল্পতম সময়ে এ ঘটনার বিচার সম্পন্ন হয়। ৪ পরিবহন শ্রমিককে ফাঁসি ও একজনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হলে সে সময়ে এ ধরনের ঘটনা কিছুটা কমলেও বর্তমানে নিপীড়নকারী, ধর্ষক, হত্যাকারীদের মামলা, গ্রেফতার ও বিচারের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে এ ধরনের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে।

এছাড়াও গণপরিবহনে যাতায়াতকালে নারীরা অসম্মানজনক আচরণ, নিপীড়ন, হেনস্তা, যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। শুধু পরিবহন শ্রমিক, চালক, হেলপার নয় কখনো কখনো সহগামী পুরুষযাত্রী দ্বারাও এ ধরনের যৌন সহিংসতার শিকার হচ্ছে।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী মনে করেন, ১ বছরে এই পরিমাণ সংবাদপত্রে প্রকাশিত ঘটনা শুধু প্রতীকী চিত্র বহন করে। প্রকৃতপক্ষে ঘটনার ভয়াবহতা অনেক বেশি। রক্ষণশীল সমাজ হিসেবে বাংলাদেশের নারীরা লোকলজ্জা ও সামাজিক মর্যাদা ও মামলা করে হয়রানি এবং বিচারের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে অসংখ্য ঘটনা চাপা পড়ে যাচ্ছে।

গত বছরের ২ আগস্ট রাতে যশোর থেকে কমিউটার ট্রেনে খুলনায় ফেরার পথে ফুলতলা রেলস্টেশনে নামলে কর্তব্যরত খুলনার জিআরপি পুলিশ মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে এক নারী যাত্রীকে আটক করে। পরে থানায় ওসি-দারোগাসহ ৫ পুলিশ মিলে রাতভর ওই নারীকে গণধর্ষণ শেষে পরদিন ৫ বোতল ফেনসিডিল দিয়ে কোর্টে চালান দেয়। আদালতে ভয়াবহ এ গণধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দিলে আদালত ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করে। এতে গণধর্ষণের ঘটনা প্রমাণিত হলেও পরবর্তীতে মামলাটি পিবিআইয়ের তদন্তে অভিযুক্ত ৫ পুলিশকে খালাস দেয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এ ঘটনার জুডিশিয়ালি তদন্তের মাধ্যমে পুনরায় তদন্ত করে অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা ও তাকে প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবি জানায় সংগঠনটি।

গণপরিবহনে নারী নির্যাতন বন্ধে সুপারিশমালা:

১. গণপরিবহনে সিসি ক্যামেরা ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা।
২. চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারের আলাদা আলাদা নেম প্লেটসহ পোশাক বাধ্যতামূলক করা।
৩. চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারের নিয়োগপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র ও ছবি নিয়ে ডাটাবেইজ তৈরি করা।
৪. গাড়ির ভিতরে নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানের হটলাইন নাম্বার, ফোন নাম্বার ও গাড়ির নাম্বার সাটানোর ব্যবস্থা করা।
৫. গণপরিবহনের সংখ্যা বাড়ানো।
৬. বাস মিনিবাসে নারীর জন্য সংরক্ষিত আসন দরজার আসে পাশে রাখা।
৭. গণপরিবহনে অস্বচ্ছ ও বিজ্ঞাপনে মোড়ানো কাচের ব্যবহার বন্ধ করা।
৮. গণপরিবহনে যৌন সহিংসতার মামলা, গ্রেফতার ও বিচার দ্রুত শেষ করা।

আরও খবর
Loading...