বিশ্বব্যাপী এভিয়েশন খাতে চাকরি হারাচ্ছে ৫ লাখ কর্মী

এভিয়েশন নিউজ ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ব এভিয়েশন খাত চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ। আয় নেই, তাই ব্যয় সংকোচনের পথে হাঁটছে বিমান সংস্থাগুলো। আর এর প্রভাব গিয়ে পড়ছে কর্মসংস্থানে। এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে আকাশ সেবা খাতে প্রায় পাঁচ লাখ কর্মীকে হয় ছাঁটাই করা হয়েছে। এরই মধ্যে অনেককে সাময়িক ছুটিতে পাঠানো হয়েছে অথবা যেকোনো সময় তাদের ছাঁটাই করা হতে পারে বলে নোটিশ দেয়া হয়েছে। খবর ব্লুমবার্গ।

বিশ্বের প্রায় সবদেশে মহামারী প্রতিরোধে বিমান যাত্রী চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। ভ্রমণ চাহিদা কমায় এয়ারলাইনসগুলো একের পর এক ফ্লাইট বাতিল করেছে। বিশেষ করে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে। টিকিট বিক্রিতে ধস নামায় আকাশসেবা সংস্থাগুলোর আয়ও থমকে গেছে। এ অবস্থায় বাধ্য হয়েই ব্যয় সংকোচনের পথ বেছে নিয়েছে তারা।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ, লুফথানসা, এমিরেটস, কান্তাসসহ বিশ্বের বড় প্রায় সব এয়ারলাইনসই হাজার হাজার কর্মী হয় ছাঁটাই করেছে অথবা অবৈতনিক ছুটিতে পাঠিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে এ খাতে আরো

উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কর্মী সামনের মাসগুলোয় চাকরি হারাতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ যুক্তরাষ্ট্রে কোনো কর্মী ছাঁটাই না করার শর্তে কোম্পানিগুলোকে ৫ হাজার কোটি ডলারের সহায়তা দিয়েছে সরকার। তবে এ শর্তের মেয়াদ সেপ্টেম্বরে শেষ হয়ে যাচ্ছে। এরপর কোম্পানিগুলো চাইলে কর্মী ছাঁটাই করতে পারবে।

ডেল্টা এয়ারলাইনস, ইউনাইটেড এয়ারলাইনস হোল্ডিংস ও আমেরিকান এয়ারলাইনস গ্রুপ এরই মধ্যে তাদের প্রায় ৩৫ হাজার কর্মীকে জানিয়ে দিয়েছে যে তাদের চাকরি ঝুঁকির মুখে রয়েছে। চলতি বছর শেষে এ তিন কোম্পানির মিলিতভাবে কর্মী ছাঁটাইয়ের সংখ্যা এক লাখে গিয়ে দাঁড়াবে।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ প্রায় ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করছে। এদের মধ্যে ৬ হাজার কর্মী স্বেচ্ছায় এবং ৪ হাজার কর্মীকে বাধ্যতামূলক ছাঁটাই করা হচ্ছে। ছাঁটাইকৃত মধ্যে রয়েছে মূলত কেবিন ক্রু, প্রকৌশলী ও বিমানবন্দর কর্মী।

আরও খবর
Loading...