ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের সদর দপ্তর বিক্রির পরিকল্পনা

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ করোনা মহামারির কারণে যে আর্থিক ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে এবার সদর দফতর ভবন বিক্রি করে দেওয়ার পরিকল্পনা করছে । করোনা পরিস্থিতির কারণে কর্মীদের অনেকে হোম অফিস করায় এখন আর এতো বড় অফিসের প্রয়োজন নেই বলে মনে করছেন তারা।

মহামারি পরবর্তী সময়েও বাড়ি আর অফিস মিলিয়ে কর্মপরিকল্পনা তৈরি করছে কোম্পানিটি। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এ তথ্য।

মহামারি মোকাবিলার অংশ হিসেবে বাড়ি থেকে অফিস করার প্রচলন শুরুর পর অনেক ব্রিটিশ কোম্পানিই তাদের অফিসের কর্মপরিকল্পনা পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে। অফিসের জায়গা কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে তারা। এতে করে মহামারিজনিত আর্থিক ধাক্কা কিছুটা হলেও কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। ব্যাংকিং জায়ান্ট লয়েডস এরইমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে যে তারা তিন বছরের মধ্যে অফিসের জায়গা ২০ শতাংশ কমিয়ে আনবে। আর এইচএসবিসি বলছে, ৪০ শতাংশ জায়গা কমিয়ে আনবেন তারা।

এবার সে পথে হাঁটছে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ। কোম্পানিটির সদর দপ্তর ভবন বিক্রি করে দেওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করে ফিন্যান্সিয়াল টাইমস। এ প্রতিবেদনে বলা হয়, এ উদ্যোগের মধ্য দিয়ে কোম্পানিটির আর্থিক সাশ্রয় হবে।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের সদর দপ্তর পশ্চিম লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরের কাছে বিশাল এলাকাজুড়ে অবস্থিত। স্বত্বাধিকারী কোম্পানি আইএজির সদর দপ্তরও সেখানে অবস্থিত। ১৯৯৮ সালে ২৭ কোটি ৯০ লাখ ডলার ব্যয়ে ভবনটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়।

ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ এর আগে সংকট কাটাতে সংগ্রহে থাকা কিছু শিল্পকর্ম নিলামে বিক্রি করে। কোম্পানির সংগ্রহে ড্যামিয়েন রিস্ট, ব্রিজেট রিলে, পিটার ডইগ, ট্রেসি এমিন, আনিশ কাপুরের মতো বিখ্যাত চিত্রশিল্পীদের চিত্রকর্ম ছিল। এর মধ্যে ১০টি চিত্রকর্ম বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় প্রতিষ্ঠানটি।

আরও খবর
Loading...