মহামারীতে কোন কোন দেশে যেতে পারছেন মার্কিনীরা?

বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ট্রাভেল ডকুমেন্টসধারী যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্টের সেই প্রতাপ কভিড-১৯ মহামারীর কারণে এখন অনেকটাই কমে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রে কভিড-১৯ সংক্রমণ যখন ৬০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে, মৃত্যুও দুই লাখের বেশি, তখনো অনেক দেশে তাদের নাগরিকরা ভ্রমণের জন্য ব্রাত্য।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন তো এ মহাদেশে ভ্রমণের নিষিদ্ধ দেশগুলোর তালিকায় এখনো রেখে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রকে। আমেরিকানরা এখনো উত্তরের প্রিয় গন্তব্য কানাডা কিংবা এশিয়ার প্রিয় গন্তব্যগুলো, যেমন থাইল্যান্ডের মতো দেশে ভ্রমণ করতে পারছেন না।

অধিকাংশ আমেরিকান এখন অল্প দূরত্বের ভ্রমণে যান, যেখানে গাড়ি নিয়ে যাওয়া সম্ভব। যদিও অনেকে এখনো বিদেশে যেতে ব্যাকুল এবং অনেকে যাচ্ছেনও। ওইসব মানুষগুলো ছুটছেন মেক্সিকো, আয়ারল্যান্ড কিংবা দক্ষিণ কোরিয়ায় এবং তালিকাটা ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে।

ঘোরাঘুরির জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে গন্তব্যগুলো খুলে দেয়া দায়িত্বপূর্ণ কিংবা যৌক্তিক কিনা, তা অনেকটাই নির্ভর করে নিজের ওপর। মহামারী যেহেতু চলছে, তাই বলার অবকাশ নেই যে, কখন এ পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) ও দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিভিন্ন দেশে কভিড-১৯ মহামারীর রিস্ক অ্যাসেসমেন্ট করেছে। সিডিসির ওয়েবসাইটে বেশিরভাগ দেশকেই ‘উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বেশিরভাগ দেশকেই তৃতীয় মাত্রা’য় রেখেছে এবং ভ্রমণ করার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করতে অনুরোধ করেছে। এরপর বর্ণানুক্রমিকভাবে দেশগুলোর তালিকা দেয়া হয়েছে যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্টধারী এখনো ভ্রমণ করতে পারেন।

আলবেনিয়া, বেলারুশ, ব্রাজিল, ডমিনিকান রিপাবলিক, মেক্সিকো, উত্তর মেসিডোনিয়া, সার্বিয়া, তুরস্ক ও জাম্বিয়ায় ভ্রমণে যেতে আমেরিকানদের কোনো বাধা নেই।

বিধিনিষেধ মেনে ভ্রমণ করা যাবে বাংলাদেশ, অ্যান্টিগা অ্যান্ড বারমুডা, আর্মেনিয়া, আরুবা, বাহামা, বার্বাডোজ, বারমুডা, কম্বোডিয়া, কোস্টারিকা, ক্রোয়েশিয়া, ডমিনিকা, দুবাই, একুয়েডর, মিসর, ইথিওপিয়া, ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া, ঘানা, গ্রেনাডা, হাইতি, হন্ডুরাস, আয়ারল্যান্ড, জ্যামাইকা, কেনিয়া, মালদ্বীপ, মাল্টা, মন্টেনেগ্রো, মরক্কো, নামিবিয়া, রুয়ান্ডা, দক্ষিণ কোরিয়া, সেন্ট বার্টস, সেন্ট লুসিয়া, সেন্ট মার্টিনস, সেন্ট ভিনসেন্ট অ্যান্ড গ্রেনাডাইনস, তাঞ্জানিয়া, টার্কস অ্যান্ড কাইকোস ও যুক্তরাজ্য।

আমেরিকান নাগরিকরা বাংলাদেশে ভ্রমণ করতে পারবেন কিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনে। ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ওয়েবসাইটে বলা আছে- ভ্রমণের সময় আপনাকে ইংরেজিতে লেখা কভিড-১৯ পরীক্ষার নেগেটিভ সনদ নিয়ে আসতে হবে, যে পরীক্ষা করা হয়েছে ভ্রমণ শুরুর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে। এছাড়া নেগেটিভ হলেও বাংলাদেশে এসে মার্কিনীদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

সূত্র: সিএনএন

আরও খবর
Loading...