মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের পদত্যাগ

একটি নতুন সরকার গঠনের সম্ভাব্য পথ তৈরি করতে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ পদত্যাগ করেছেন।এক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছে, দুপুর ১টার সময় মালয়েশিয়ার রাজার কাছে পদত্যাগপত্র পাঠানো হয়েছে।খবর আলজাজিরা।

সিঙ্গাপুরভিত্তিক সংবাদমাধ্যম স্ট্রেইট টাইমস’র খবরে বলা হয়েছে, মাহাথিরে এই পদত্যাগ কৌশলগত কারণে হতে পারে। পাকাতান হারাপান দলের বেশ কয়েকজন নেতাও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তাদের মতে, আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে প্রধানমন্ত্রীত্ব হস্তান্তর না করতেই এই কৌশল গ্রহণ করেছেন তিনি। দলের অভ্যন্তরীন চুক্তি অনুসারে ২০২৩ সালের নির্বাচনের আগে আনোয়ার ইব্রাহিমের দায়িত্ব হস্তান্তর করার কথা মাহাথিরের।

মাহাথির দুই লাইনের বিবৃতিতে বলেছেন যে, সোমবার বেলা ১ টায় (কুয়ালালামপুর সময় ৫ টা) তিনি দেশটির বাদশাকে তার পদত্যাগ সম্পর্কে অবহিত করেছেন।

দুর্নীতিতে জর্জরিত জোটকে হারিয়ে ঐতিহাসিক এক নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ২০১৮ সালে মাহাথির ক্ষমতায় আসেন।নির্বাচনের আগে দুই বছরের মাথায় জোট নেতা আনোয়ার ইব্রাহিমকে প্রধানমন্ত্রী পদে দায়িত্ব দিয়ে বিদায় নেয়ার কথা থাকলেও ক্ষমতা ছাড়েননি মাহাথির।

এক সূত্র জানায়, মালয়েশিয়ার রাজা এই পদত্যাগপত্র গ্রহণ করবেন না। কারণ পার্লামেন্টের সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থন রয়েছে মাহাথিরের প্রতি।অবশ্য মালয়েশিয়ার রাজা স্থানীয় সময় সোমবার দুপুর আড়াইটায় আনোয়ার ইব্রাহিমের সঙ্গে বৈঠক করবেন। ফলে মাহাথিরের পদত্যাগ তিনি গ্রহণ করবেন না এমনটি নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

এর আগে স্ট্রেইট টাইমস’র এক খবরে বলা হয়, মাহাথিরের নেতৃত্বাধীন প্রিবুমি বারসাতু মালয়েশিয়া (পিপিবিএম)’র এমপি ও নেতারা রবিবার সকালে দলটির প্রধান কার্যালয়ে ছয় ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন।

এছাড়া শনিবার রাতে সংবাদ সম্মেলনে করেন মাহাথির মোহাম্মদ। এতে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে যাওয়া ও আনোয়ার ইব্রাহিমকে সুযোগ দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেছিন, বিষয়টি এখন আমার ওপর নির্ভর করছে।মাহাথিরের পদত্যাগের পর তার সম্ভাব্য উত্তরসূরি হিসেবে আনোয়ার ইব্রাহীমকে ভাবা হচ্ছে।

গেল দুই দশকের বেশি ক্ষমতায় থাকার পর ২০০৩ সালে তিনি পদত্যাগ করেছিলেন। এতে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের সুযোগ পান নাজিব রাজাক। বর্তমান দুর্নীতির অভিযোগে তার বিচার চলছে।

আরও খবর
Loading...