যাত্রীরা উদগ্রীব না, সাংবাদিকরা পর্তুগালের ফ্লাইট নিয়ে বার্নিং ইস্যু বানানোর চেষ্টা করছেন-তাহেরা খন্দকার

সকাল ৭টা থেকে রাত ১১ টা পযন্ত বিমানবন্দরে অপেক্ষা করেও ফ্লাইট ধরতে পারেননি পর্তুগালে যাওয়ার জন্য আসা ২৩৩ জন যাত্রী। এসব যাত্রীদের অনেকে সারাদিন কিছু খেতেও পারেননি। দিনভর বিমানবন্দরে উদ্বেগ আর উ/কন্ঠা নিয়ে সময় কাটিয়েছেন। রাত ১১টা পযন্ত অপেক্ষার পর যখন শুনেছেন রাতেও ফ্লাইট যাবে না তখন অনেকে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। অপর দিকে পর্তুগালের বিমানবন্দরে এসব যাত্রীকে নিতে আসা স্বজনরাও দিনভর অপেক্ষা করে ফ্লাইটের খবর না পেয়ে উদ্বিগ্ন অবস্থায় আছেন। যাত্রীদের মধ্যে অনেকে বিমানবন্দরে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। শিশু যাত্রীরা দিনভর বিমানবন্দরে কান্নাকাটি করেছে।

কিন্তু বিমানের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার তাহেরা খন্দকারের কাছে এটি কোন উদগ্রীব হবার বিষয় ছিল না! যে কারণে বাংলাট্রিবিউনের কাছে তিনি বলেছেন, ’ফ্লাইটটি এখনও ছেড়ে যায়নি। যাত্রীরা তো এ বিষয়ে উদগ্রীব না, আপনারা (সাংবাদিকরা) কেন এটাকে বার্নিং ইস্যু বানানোর চেষ্টা করছেন। বেশি কিছু জানার দরকার হলে পর্তুগালে যোগাযোগ করুন।’

জানাগেছে, বাংলাদেশ বিশেষ ফ্লাইটের আয়োজন করলেও পর্তুগালের নতুন নিয়মের কারণে আটকে আছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট। বুধবার (২৪ জুন) সকাল ১১টায় ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পর্তুগালের নতুন নিয়মের কারণে অনুমতি না মেলায় ফ্লাইট ছাড়তে পারেনি বিমান। সকাল থেকে বিমানবন্দরে এসে আটকে আছেন ২৩৩ জন যাত্রী। ফ্লাইটটি নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। বিমানবন্দর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে বিমানের উপ-মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকার বলেন, গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘ফ্লাইটটি এখনও ছেড়ে যায়নি। যাত্রীরা তো এ বিষয়ে উদগ্রীব না, আপনারা (সাংবাদিকরা) কেন এটাকে বার্নিং ইস্যু বানানোর চেষ্টা করছেন। বেশি কিছু জানার দরকার হলে পর্তুগালে যোগাযোগ করুন।’

এদিকে এই ফ্লাইটে যেতে যাত্রীরা সকাল সাতটার দিকে বিমানবন্দরে আসেন। তবে ফ্লাইটের অনুমতি না পাওয়ায় যাত্রীদের সকাল থেকে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। বিমানের পক্ষ থেকে দুপুরের খাবার ও নাশতা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন যাত্রীরা।

এই ফ্লাইটের যাত্রী রুবেল আজিম বাংলা বলেন, ‘আমরা সকালে এসে বিমানবন্দরে বসে আছি। একবার বলা হলো— বিকাল চারটায় ছেড়ে যাবে, কিন্তু যায়নি। এরপর বলা হচ্ছে, রাত সাড়ে ১১টায় যাবে। কিন্তু তার কোনও নিশ্চয়তা দেখছি না। এক লাখ ১০ হাজার টাকা দিয়ে টিকিট কেটেছি। এখন বুঝতে পারছি না কী করবো। বিমানের পক্ষ থেকে আমাদের অপেক্ষা করতে বলা হয়েছে।’

আরও খবর
Loading...