শাহাজালাল বিমানবন্দরের রফতানি কার্গো কমপ্লেক্সে নেই কাস্টমসের প্রবেশাধিকার

কাস্টম আইন অনুসারে হজরত শাহাজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাস্টম এলাকায় দায়িত্বপালনে ক্ষমতাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ঢাকা কাস্টম হাউস।
বিমানবন্দরের টার্মিনাল ভবন ও আমদানি কার্গো ভিলেজে দায়িত্বপালন করলেও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) সহযোগিতা না পাওয়ায় বিমানবন্দরের রফতানি কার্গো কমপ্লেক্সে ঢুকতে পারছেন না শুল্ক কর্মকর্তারা।
ফলে রফতানি কার্গো এলাকা কাস্টমসের নজরদারির বাইরে থাকায় মিথ্যা ঘোষণায় রফতানি, রফতানি নিষিদ্ধ পণ্য রফতানি,মুদ্রা পাচারের ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে।
রফতানি কার্গো কমপ্লেক্সের স্ক্যানিং মেশিন রুমে শুল্ক কর্মকর্তাদের দায়িত্বপালনে সহায়তা চেয়ে বিমানবন্দরের পরিচালক ও বেবিচক চেয়ারম্যানকে একাধিকবার চিঠি দিয়েও কোনও সুরাহ করতে পারেনি ঢাকা কাস্টম হাউস।
কাস্টমসের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ বেবিচকের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান বলেন, ‘রফতানি কার্গোতে প্রাথমিকভাবে কী মালামাল যাচ্ছে, তা কাস্টম থেকে ক্লিয়ারেন্স নিয়েই আসে।
এখানে কাস্টমসের অফিসও আছে। কাস্টম চাচ্ছে সিকিউরিটি স্ক্যানিংয়ের সময় থাকতে।
এক সংস্থার কাজে যদি অন্য সংস্থা ইন্টারফেয়ার করে তখন কাজে ব্যাঘাত ঘটে।
এ ক্ষেত্রে সময়ও বেশি লেগে যাবে। এই জায়গায় একটা কনফ্লিক্ট কাজ করছে।
আশা করি, কনফ্লিক্ট থাকবে না, যদি আমরা যার যার কাজ ঠিক মতো করি।’

আরও খবর
Loading...