হজ নিয়ে ইরানের বিরুদ্ধে রাজনীতির অভিযোগ সৌদির

haj20160908155904অভ্যন্তরীণ সমস্যা থেকে মানুষের মনোযোগ সরিয়ে দিতে ইরান হজ নিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে বলে অভিযোগ করেছেন সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-জুবায়ের। তিনি বলেছেন, ইরানি হজ পালনকারীদেরকে স্বাগত জানাতে সৌদি আরবের প্রস্তুতি সত্ত্বেও তেহরান এ বিষয়টিকে জটিলতা সৃষ্টি করে রাজনীতি করছে।

লন্ডনে সৌদি দূতাবাসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, সরকারের ধারাবাহিক ব্যর্থতাকে ইরানের জনগণের দৃষ্টি থেকে আড়াল করতেই হজ নিয়ে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা সাম্প্রতিক মন্তব্য করেছেন। এ কারণেই পবিত্র হজ সম্পাদনে তীর্থযাত্রীদেরকে সৌদি আসতে দেয়নি ইরান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-জুবায়ের জোর দিয়ে বলেন, বিশ্বের সব দেশের হজপালনকারীদেরকে স্বাগত জানাতে সৌদি সরকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিল। কিন্তু ইরান সরকার ভ্রমণ ও ভিসা ব্যবস্থাপনায় সহযোগিতা করেনি। প্রত্যেক বছর ৩০ লাখেরও বেশি হজপালনকারীর নিরাপদ হজ সম্পাদন নিশ্চিত করতে সৌদি আরব প্রত্যেক দেশের সঙ্গে সমন্বয় করে।

এদিকে, সৌদি আরবের সমালোচনা করে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির মন্তব্যের নিন্দা জানিয়েছে উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ জোট (জিসিসি)। এক বিবৃতিতে খামেনির সমালোচনাকে মিথ্যা ও ভয়ানক বলে মন্তব্য করেছে জিসিসি।

এদিকে, সৌদি আরবের কাছে থেকে হজের ব্যবস্থাপনা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়কে দায়িত্ব নিতে ইরানের আহ্বান নাকচ করে দিয়েছে মিসরের আল আজহার ইউনিভার্সিটির সিনিয়র স্কলারস পরিষদ।

এর আগে, সোমবার সৌদি আরবের তীব্র সমালোচনা করেছেন ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। সৌদি শাসককে বিধর্মী উল্লেখ করে খামেনি বলেছেন, মিনা দুর্ঘটনায় নিহতদের অনেককে হত্যা করেছেন সৌদি বাদশাহ। এ ঘটনা আবারো প্রমাণ করে, এই ‘অভিশপ্ত ও শয়তান পরিবার’ পবিত্র স্থানের সংরক্ষণের দায়িত্ব পেতে পারে না।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতার এ ধরনের মন্তব্যের পর সৌদি গ্রান্ড মুফতি শেইখ আব্দুল আজিজ আর শেইখ বলেছেন, খামেনির মন্তব্যে তিনি বিস্মিত হননি। মক্কা ডেইলিকে তিনি বলেন, ‘আমাদেরকে বুঝতে হবে যে, তারা (ইরানের নেতা) মুসলিম নন। তারা প্রাচীন পারসিক পুরোহিতের সন্তান এবং মুসলিমদের সঙ্গে তাদের শত্রুতা পুরনো। প্রাচীন পারসিক বলতে অগ্নিপূজাকে বোঝায় এবং তারা অগ্নিপূজা করে।’

চলতি বছর হজ সম্পাদনের উদ্দেশ্যে বিশ্বের লাখ লাখ মুসলিম সৌদি আরবে জমায়েত হয়েছেন। এ বছর ইরানি হজযাত্রীরা হজ পালনে সৌদি আরব যায়নি। সৌদি আরবের কাছে তেহরানের হজপালনকারীদের জন্য বেশ কিছু দাবি জানিয়েছিল ইরান। সৌদি আরব তা নাকচ করে দেয়ায় হজ পালন থেকে বিরত রয়েছেন ইরানি তীর্থযাত্রীরা।

আরও খবর
Loading...