ইউরোপ, আমেরিকা ফ্লাইট সেফটিতে ঢাকার তৈরি ডেটা ব্যবহারে আগ্রহী

বেবিচকের তৈরি করা ইলেক্ট্রনিক কসক্যাপ ক্যাপাসিটি বিল্ডিং ম্যাটিক্স সফটওয়্যারটি এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলো ব্যবহারের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

কো-অপারেটিভ ডেভলপমেন্ট ফর অপারেশনাল সেফটি এন্ড কন্টিনিউয়িং এয়ারওর্দিনেস প্রোগ্রাম, সাউথ এশিয়া (কসক্যাপ এসএ) এর চেয়ারম্যান ও নেপাল বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক রাজন পোখরেলের সভাপতিত্বে ২৮তম স্টিয়ারিং কমিটির সভায় এই আগ্রহ প্রকাশ করা হয়।

সভায় আকাশপথে নিরাপদ বিমান উড্ডয়ন ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে হলে পারস্পারিক দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের পাশাপাশি আন্তজার্তিক সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়।

সভায় বক্তারা নিরাপদ বিমান যোগাযোগ নিশ্চিতে ফ্লাইট সেফটি পর্যবেক্ষণ, অনুসন্ধান, পরিদর্শন, তদন্ত ও নিরীক্ষা বিষয়ে অভিজ্ঞ লোকদের কাজে লাগাতে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কতৃর্পক্ষের ডাটাবেজ তথা সফটওয়্যারের প্রশংসা করেন।

আইকাও এশিয়া প্যাসেফিক অঞ্চলের ৩৭টি দেশে সফ্টওয়্যারটির কার্যকারিতা পর্যবেক্ষন করে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় এবং আইকাও ল্যাটিন আমেরিকা ও সাউথ আমেরিকা অঞ্চলের দেশগুলো ভবিষৎতে আইকাও এর সদস্য ১৯৩টি দেশে এর ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা হয়।

এ সফটওয়ারটি কসক্যাপ-এসএ কর্তৃক ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হয়, যা ক্রমান্বয়ে বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের দেশসমূহে ব্যবহৃত হবে। সভায় উক্ত সফ্টওয়্যার তৈরী করার জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করা হয় এবং বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

কসক্যাপ এসএ এর সভায় বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমানের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করেন।

বেবিচক চেয়ারম্যান সভায় জানান, উক্ত সফ্টওয়্যারটির মান উন্নয়ন, সম্প্রসারণ, রক্ষাণাবেক্ষণ ও অপারেটর, এডমিনিস্ট্রেটরদের প্রশিক্ষণ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক দেয়া হবে।

কসক্যাপ-এসএ এর সদস্য- আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, নেপাল ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। এছাড়া আইকাও সদর দফতর, আইকাও এশিয়া প্যাসেফিক অফিস, ফেডারেল এভিয়েশন এডমিনিস্ট্রেশন, বোয়িং, ইয়াসা, ইফাআলফা, সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অফ ফ্রান্সের মহাপরিচালক সহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

 

আরও খবর
Loading...