যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বৃহৎ তুষার ঝড়ে জনজীবন বিপর্যস্ত

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সোমবার ভোর থেকে শুরু হওয়া তুষার ঝড় চলবে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত। উত্তর পূর্বাঞ্চলে চলতি বছরের প্রথম বৃহৎ তুষার ঝড়ে দেশটির জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, নিউইয়র্কসহ পার্শ্ববর্তী বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে দেড় ফুটেরও বেশি বরফের স্তরে ঢেকে যেতে পারে। আট ঘণ্টার লাগাতার তুষারপাতে ইতোমধ্যে অন্তত শতাধিক সড়ক দুর্ঘটনার খবর পাওয়া গেছে।

রাস্তায় যানবাহন আটকে আছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস বন্ধসহ বহু বিমানের সময়সূচি বাতিল করা হয়েছে। চলতি বছরে এটাই প্রথম বড় তুষারপাত বলে স্থানীয়রা উল্লেখ করেছেন।

ভয়াবহ এই তুষারপাতের পূর্বাভাসের পরই নিউইয়র্ক নগরের মেয়র বিল ডি ব্লাজিও গতকাল জরুরি অবস্থা জারি করেন। তিনি এই ঝড়কে ‘খুবই ভয়াবহ’ বলে উল্লেখ করেছেন। এ সম্পর্কিত বিবৃতিতে মেয়র বলেন, সবাই ঘরে থাকুন। রাস্তা পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন, যাতে জরুরি সেবা সবার কাছে পৌঁছে দেয়া যায়। কোনো ভুল করবেন না। এই ঝড়ের কারণে ভারী তুষারপাত হবে, যা চলাচলের রাস্তাকে বিপজ্জনক করে তুলবে।

আবহাওয়া কর্মকর্তারা জানান, বাফেলো নগরীর অনেক এলাকা ইতোমধ্যে এক ফুট বরফের নিচে ঢাকা পড়েছে। তুষারপাতের কারণে পশ্চিম নিউইয়র্কের বেশ কিছু শহরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। শহরের রাস্তা-ঘাট ও ঘরবাড়ি বরফে ঢাকা পড়েছে। এতে বহু লোক বিভিন্ন স্থানে আটকা পড়েছে।

ঝড় চলাকালে তাপমাত্রা অনেক কম থাকবে। তবে বাতাসের কারণে এই ঠান্ডা আরও বেশি অনুভূত হবে। এই সময়ে বাতাসের গতিবেগ সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ৫০ মাইল হতে পারে।

সূত্রটি জানায়, তুষার ও বাতাসের কারণে এই শীত আমাদের জন্য ভয়াবহ হয়ে হাজির হবে। ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। এমনকি বিদ্যুৎহীন অবস্থায়ও থাকতে হতে পারে নিউইয়র্কবাসীকে। ঝড়ের কারণে উপকূলবর্তী এলাকায় বন্যার আশঙ্কাও আছে। দৃষ্টিপথ পরিষ্কার থাকবে না। ফলে রাস্তায় চলাচল কঠিন হয়ে পড়বে। আশা করি, সবাই এই সময়টা ঘরে কাটাবেন এবং আমাদের কোনো বাজে সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে না।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.