সময় শেষ হচ্ছে আজ : ৭৮ হাজার হজযাত্রী টাকা জমা দিতে পারেননি

hajjমোয়াল্লেম ফি জমা দিয়ে নির্ধারিত কোটার মধ্যে যেসব হজযাত্রী প্রাক-নিবন্ধন করেছেন তাঁদের সর্বনিম্ন প্যাকেজের বাকি টাকা জমা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে আজ ৩০ মের মধ্যে। কিন্তু গতকাল রবিবার পর্যন্ত বেসরকারিভাবে হজ গমনেচ্ছুদের মধ্যে তালিকাভুক্ত ৮৮ হাজার হজযাত্রীর মধ্যে মাত্র ১০ হাজারজন পুরো টাকা জমা দিয়ে নিবন্ধন করেছেন। আজকের মধ্যে বাকি ৭৮ হাজার হজযাত্রীর পুরো টাকা জমা দেওয়া সম্ভব নয়। তাই গতকাল শেষ সময়ের আগের দিন সময় বাড়ানোর অনুরোধ করেছে হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাব। কিন্তু ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে সময় বাড়ানোর কোনো নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি। এদিকে সময় না বাড়ালে ৭৮ হাজার হজযাত্রী এবার হজের পুরো টাকা জমা দিতে পারবেন না।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ৩০ মের মধ্যে কেউ টাকা জমার বিষয়টি নিশ্চিত করতে না পারলে এ বছর তার আর হজে যাওয়া হবে না। ৩০ মের পর অনলাইনে হজযাত্রীদের বাকি টাকা প্রাপ্তির বিষয়টি এন্ট্রি করার পরই হজযাত্রীপ্রতি পিলগ্রিম আইডি দেওয়া হবে। যাঁরা শুধু পিলগ্রিম আইডি পাবেন, তাঁরাই হজে যাবেন। চলতি বছর সরকারি-বেসরকারি মিলে মোট হজযাত্রী পাঠানোর কোটা এক লাখ এক হাজার ৭৫৮ জন। সরকারি ব্যবস্থাপনার কোটা ১০ হাজার। বাকি ৯১ হাজার ৭৫৮ জন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন। এর মধ্যে গাইড বাদ দিয়ে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার জন্য ৮৮ হাজার ২০০ জনের কোটা নির্ধারণ করা হয়।

জানতে চাইলে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আব্দুল জলিল বলেন, ‘আমরা তো সৌদি কর্তৃপক্ষের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেই হজের সব কার্যক্রম শেষ করতে চাই। তাই ৩০ মের পরে সময় বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।’ তিনি গত রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হাব আমাদের কাছে সময় বাড়ানোর আবেদন করেছে। আমরা কাল (আজ) জেদ্দা হজ অফিসের মাধ্যমে সৌদি হজ মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা করেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারব।’

গত ২৩ মার্চ থেকে প্রাক-নিবন্ধন শুরু হলে ২৮ মার্চের মধ্যেই বেসরকারি ব্যবস্থাপনার নির্ধারিত কোটা পূর্ণ হয়ে যায়। এরপর নিবন্ধন বন্ধ রাখা হলেও পরে হাবের অনুরোধে পরবর্তী বছরের জন্য অগ্রাধিকার তালিকায় স্থান পাবে, এ শর্তে আবারও প্রাক-নিবন্ধন শুরু হয়। সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনা মিলে গতকাল বিকেল ৫টা পর্যন্ত এক লাখ ৩৬ হাজার ৫২১ জনের প্রাক-নিবন্ধন শেষ হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় তিন হাজার ৭১২ জনের এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ৩২ হাজার ৮০৯ জন। এ হিসাবে এরই মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় কোটার অতিরিক্ত হজযাত্রী ৪৪ হাজার ৬০৯ জন।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, হাবের পক্ষ থেকে কমপক্ষে ১০ দিনের দাবি জানানো হলেও ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে মাত্র তিন দিন সময় বাড়ানোর আভাস দেওয়া হয়েছে বলে নিবন্ধন কার্যক্রমে জড়িত একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আজ সোমবার জানানো হবে বলেও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

জানতে চাইলে বেসরকারি হজ এজেন্সি মালিকদের সংগঠন হাবের সহসভাপতি ফরিদ আহমেদ মজুমদার বলেন, উদ্ভূত নানা সমস্যার কারণে হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় কমপক্ষে ১০ দিন বাড়ানোর দাবি নিয়ে গতকাল ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান এবং সচিব মো. আব্দুল জলিলের সঙ্গে পৃথক বৈঠক হয়েছে। এ সময় মন্ত্রী ও সচিব দুজনই দাবির যৌক্তিকতার সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন।

এত দিনে হজযাত্রী নিবন্ধনে সাড়া না পড়া প্রসঙ্গে ফরিদ আহমেদ মজুমদার জানান, প্রাক-নিবন্ধিত অনেক হজযাত্রীর পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। তারা নতুন করে পাসপোর্ট করতে দিয়েছে, যা এখনো হাতে পৌঁছেনি। এ ছাড়া নতুন নিয়ম অনুযায়ী হজের চার মাস আগে পুরো টাকা জমা দিতে গড়িমসি করছেন হজযাত্রীরা। এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে যথাযথ প্রচারণারও ঘাটতি ছিল।

পূর্বনির্ধারিত কোটায় প্রাক-নিবন্ধিতরাই হজের মূল নিবন্ধনের সুযোগ পাচ্ছেন। ১৬ মে থেকে এই কার্যক্রম শুরু হয়।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.