পুঁতে ফেলা তিমি ২ মাস পর আবারো তোলা হবে

শুক্রবার ও শনিবার কক্সবাজার সৈকতের মেরিন ড্রাইভ সংলগ্ন হিমছড়িতে ভেসে আসা তিমি দুটি হিমছড়ি সৈকতের বালুচরে পুঁতে ফেলা হয়েছে। দুই মাস পর এখান থেকে তিমির কঙ্কাল সংগ্রহ করা হবে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা জানান, শুক্রবারের উদ্ধারকৃত মৃত তিমির চেয়ে এটি আকারে একটু ছোট। তবে আগেরটি এবং এটির মৃত্যু একই সময়ে হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফের ভেসে আসা মৃত তিমিটির দৈর্ঘ্য ৪৩ ফুট ও প্রস্থ ১৫ ফুট। ওজন হবে ১০ টনের অধিক।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আমিন আল পারভেজ বলেন, শুক্রবার ভেসে আসা মৃত তিমির মতো এই তিমিটিও দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল। তাই আগেরটির মতো এটিকেও হিমছড়ি সৈকতের বালুচরে পুঁতে ফেলা হয়েছে। তবে জায়গাটি চিহ্নিত করা আছে। দুই মাস পর ওই জায়গা থেকে তিমির কঙ্কাল সংগ্রহ করে গবেষণার জন্য সংরক্ষণ করা হবে।

কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এসএম খালেকুজ্জামান বলেন, মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তা মৃত তিমির নমুনা সংগ্রহ করেছেন। ময়নাতদন্তের পরে জানা যাবে কীভাবে পরপর দুটি তিমির মৃত্যু হয়েছে। গভীর সমুদ্রে বড় জাহাজের ধাক্কা অথবা জেলেদের হাতে তিমিগুলোর মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে বলে পরিবেশবাদীদের ধারণা।

আরও খবর
Loading...