কোভিড প্রতিরোধ ও প্রতিকারে আইভারভ্যাকটিনের প্রচারণা দিন দিন বাড়ছে

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ বৃদ্ধির সঙ্গে কোভিড প্রতিরোধ ও প্রতিকারে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে আবারও ভুয়া ও বৈজ্ঞানিক ভিত্তিহীন তথ্যের প্রচার মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে।

কোভিডের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণে ইন্দোনেশিয়ার স্বাস্থ্যখাতে প্রতিকূলতার সৃষ্টি হয়েছে। বাড়তে থাকার রোগীর সংখ্যা, অক্সিজেন সংকট এবং সাহায্যপ্রার্থী স্বজনদের ক্রমাগত আহ্বানে দেশটির হাসপাতালগুলোসহ হিমশিম খাচ্ছে স্বাস্থ্যব্যবস্থা।

বিপর্যস্ত এই পরিস্থিতির মাঝেই স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিভিন্ন ভ্রান্ত তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে পড়ছে।

কৃমি ও অন্যান্য পরজীবী সংক্রমণ রোধে ব্যবহৃত অ্যান্টি-প্যারাসাইটিক ওষুধ আইভারভ্যাকটিনের প্রচারণা দিন দিন বাড়ছে।

স্থানীয় গণমাধ্যম ইন্দোনেশিয়ান কর্তৃপক্ষের আইভারমেকটিনের জরুরি অনুমোদন প্রদানের ভুল সংবাদ প্রচার করে।

ওষুধটির কার্যকারিতা নিয়ে এখনও ট্রায়াল চলছে। কোভিড সাড়াতে আইভারমেকটিনের কার্যকারিতা এখন পর্যন্ত প্রমাণিত নয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নির্দিষ্ট ক্লিনিকাল ব্যবস্থার অধীনে ওষুধটি ব্যবহারের বিষয়ে বারবার সতর্ক করলেও বহু জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব আইভারম্যাকটিনকে কোভিড চিকিৎসায় কার্যকর হিসেবে প্রচারণা করেছেন।

আইভারম্যাকটিন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান মার্ক জানায়, কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে আইভারম্যাকটিনের কার্যকারিতার এখন পর্যন্ত কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই।

অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটির এপিডেমিওলজিস্ট ড. ডিকি বুডিমান বলেন, “পরামর্শ ব্যতীত ওষুধটি সেবন করা উচিত নয়। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধটি সেবনে তীব্র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে।”

তবে, যুক্তরাজ্যসহ কয়েকটি দেশে আইভারম্যাকটিনকে কোভিডের সম্ভাব্য চিকিৎসা উপাদান হিসেবে ব্যবহারে গবেষণা চলছে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.