যশোরে মুখে কালি মেখে চুল কেটে নারীকে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ

মারধর করে বেঁধে মুখে কালি মেখে চুল কেটে এক নারীকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ভুক্তভোগী নারী এ অভিযোগ করেছেন।
তার দাবি ভিটে বাড়ি ও দোকান দখলের জন্য তার বর্তমান স্বামী নওয়াব আলীর ভাই ও বোনের ছেলে-ছেলে বউরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। ইতিমধ্যে তার দোকানটি টিন দিয়ে আটকে দেওয়া হয়েছে।

তবে নওয়াব আলীর বোনের ছেলে আক্তার এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন।
ভুক্তভোগী নারী তার আপন চাচা শ্বশুরকে বিয়ে করায় মান সম্মান রক্ষা করতে গ্রামের নারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে তার মুখে চুনকালি দিয়েছে।
গতকাল শনিবার দুপুরে যশোর সদর উপজেলার মালঞ্চি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
রাতে ওই নারী হাসপাতালে ভর্তি হলে এ ঘটনা জানাজানি হয়।
এ ঘটনায় আরো ৪ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

আহতরা হলেন- পাচু মোড়লের ছেলে আজগর হোসেন ও আক্তার হোসেন, হায়দার আলীর ছেলে রিপন হোসেন ও নওয়াব আলীর ছেলে রয়েল। এই তিনজনের মধ্যে রয়েল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

এ ব্যাপারে হাসপাতালে ভর্তি নারী জানান, তিন কন্যা সন্তান রেখে সাড়ে ৩ বছর আগে তার স্বামী রেজাউল করীম মারা যান।
এরপর তার শ্বশুর ইউনুস মোড়ল (রেজাউল করীমের বাবা) কাজলের নামে ভিটে বাড়ির একটা অংশ ও বাড়ি লাগোয়া মুদি দোকান লিখে দেন।
ওই নারী সেই দোকান দিয়ে সংসার চালাতেন। ৬ মাস আগে তিনি নওয়াব আলীকে বিয়ে করেন।
নওয়াব আলী সম্পর্কে তার চাচা শ্বশুর ছিলেন।
এ নিয়ে প্রায় সময় তার বর্তমান স্বামী নওয়াব আলীর বোন জাহেদার ছেলে আক্তার, আজগর ও ভাই হায়দারের ছেলে রিপন এবং তাদের স্ত্রীরা গালমন্দ করাসহ বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দিত। ইতিমধ্যে তারা টিন দিয়ে দোকান আটকে দিয়েছে।

শনিবার আবার তারা এ নিয়ে গালাগাল করে লাঠিসোটা নিয়ে ভুক্তভোগী নারীর ঘর ভাঙতে আসে। বাধা দিতে গেলে এক পর্যায়ে তারা ওই নারী ও নওয়াব আলীকে মারধর করে। এরপর নওয়াব আলীকে ঘরে আটকে রাখে। এসময় আক্তারের স্ত্রী বিউটি ও রিপনের স্ত্রী জোসনাসহ আরো কয়েকজন কাজলকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মুখে কালি মেখে চুল কেটে দেয়।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.