কোথায় থামবে পুতিন বাহিনী?

২৪ ফেব্রুয়ারি দোনবাস অঞ্চলে সামরিক অভিযান শুরু করে রুশ সেনারা।
রাশিয়া-ইউক্রেনের চলমান যুদ্ধ গড়িয়েছে নবম দিনে।
তবে ইউক্রেনে রুশ সেনা অভিযানের ভবিষ্যৎ কি তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারছে না কেউই।
দুই দেশের মধ্যে শান্তি আলোচনায় দুদফা বৈঠক হলেও আশার আলো দেখা যাচ্ছে না এখনো।
ইউক্রেনে চলমান রুশ সেনা অভিযান কীভাবে শেষ হতে পারে তা নিয়ে একটি বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনের শুরুতে সংক্ষিপ্ত পরিসরে যুদ্ধের বিষয়ে আলোচনা করা হয়।
এতে বলা হয় ইউক্রেনজুড়ে গোলাবর্ষণ আর ক্ষেপণাস্ত্র হামলার মুখে পতন হতে পারে কিয়েভের।
এরপর দেশটির বর্তমান সরকারকে উৎখাত করে কিংবা প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কিকে হত্যা করে রুশপন্থি কাউকে দেশটির ক্ষমতায় বসিয়ে বিজয় ঘোষণা করতে পারেন পুতিন। এতে সবচেয়ে কম সময়ে শেষ হতে পারে চলমান সেনা অভিযান।

আবার চলমান যুদ্ধ হতে পারে দীর্ঘস্থায়ী।
আর এর কারণে রুশ সেনারা মনোবল হারালে দেখা যেতে পারে নেতৃত্বের দুর্বলতা। ফলে কিয়েভ দখলে নিয়ে জেলেনস্কিকে সরাতে অনেক সময় লেগে যাবে রাশিয়ার। আর পশ্চিমারা ইউক্রেনকে অস্ত্র-গোলাবারুদ দিয়ে সাহায্য করলে যুদ্ধ হবে আরও সময়সাপেক্ষ।
পরে খালি হাতেই ফিরতে হতে পারে রাশিয়াকে।
যেমনটা হয়েছিল ১৯৮৯ সালে আফগানিস্তান যুদ্ধে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.