যে কারণে বিশ্বব্যাংকের অর্থ বন্ধ করেছিলেন ইউনূস, জানালেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদ ছেড়ে দিতে হবে-এটা মানতে না পেরে কথিত দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থ বন্ধ করতে কাজ করেন ড. ইউনূস।
মঙ্গলবার বিকেলে পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে দুই থানা উদ্বোধন উপলক্ষ্যে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের মর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক পদ্মা সেতু। আপনারা জানেন, আমাদের দেশের একজন বিশ্বখ্যাত মানুষ হলেও একটা ব্যাংকের এমডি পদ তার বয়সের কারণে ছেড়ে দিতে হচ্ছে সেটা তিনি মানতে পারেননি।
একদিকে আমাদের সরকারের বিরুদ্ধে দুই-দুটা মামলা করে হেরে গেছে, পরবর্তীতে ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের কাছে তদবির করে—যেভাবেই হোক আমাদের পদ্মা সেতুর টাকা বন্ধ করে দিয়েছিল।
দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগ আমাদের ওপর নিয়ে আসে।
যখন দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করতে পারে না তখন বলে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র ছিল।
এটাকে আমি চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম এবং সেই থেকে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আমরা বাংলাদেশের মানুষ জাতির পিতার ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করে বিজয় অর্জন করেছি, কাজে পদ্মা সেতু নিয়ে যখন মিথ্যা অপবাদ দেওয়া হয় এবং একটি মামলাও করে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক কানাডা আদালতে, সেই আদালতের রায়ে স্পষ্টভাবে কোর্ট বলে দেয়—এখানো কোনো দুর্নীতি তো হয়নি, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যেসব অভিযোগ করেছে সেগুলো সব ভুয়া, বানোয়াট, মিথ্যা।

এই কথার পরে তো আর কোনো কথা থাকে না, কিন্তু তারপর যারা আমাদের বদনাম দিয়েছে তাদের টাকায় আমি পদ্মা সেতু করবো না এটাই আমার সিদ্ধান্ত ছিল।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.