আকিজ জুট মিলে ৬ হাজার ৩০০ শ্রমিক ছাঁটাই

উৎপাদিত পণ্য বিদেশে রপ্তানি কমে যাওয়ায় ছয় হাজার ৩০০ কর্মীকে ছাঁটাই করেছে আকিজ জুট মিল। বিদেশী অর্ডার না থাকাইয় এবং দেশের বাজারে পাটের মূল্যবৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে কারখানাটি পুরোপুরি সচল রাখা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

আকিজ জুট মিলের নির্বাহী পরিচালক শেখ আব্দুল হাকিম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়ায় অবস্থিত আকিজ জুট মিল বেসরকারি খাতে পরিচালিত দেশের বৃহৎ পাটকল। এই জুট মিলে তিন শিফটে যশোর, খুলনা ও নড়াইল জেলার বিভিন্ন উপজেলার প্রায় সাত হাজার শ্রমিক নিয়মিত কাজ করেন। প্রতিদিন তাদের ২৩টি বাসের মাধ্যমে কারখানায় আনা-নেওয়া করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার থেকে আকস্মিক বাস সার্ভিস বন্ধ করে দেয় মিল কর্র্তৃপক্ষ। পরে জানা যায়, কর্র্তৃপক্ষ স্থায়ী ৭০০ শ্রমিক বাদে সবাইকে কাজে আসতে নিষেধ করেছে।

শেখ আবদুল হাকিম জানান, তাদের পণ্য মূলত তুরস্কে যায়। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে উৎপাদিত পণ্য পাঠানো যাচ্ছে না। আর পাঠাতে গেলে খরচও বেশি হচ্ছে। সেই সঙ্গে নতুন অর্ডারও কমে গেছে। এর পাশাপাশি দেশের বাজারে গুণগত মানের পাট পাওয়া যাচ্ছে না। যে পাট পাওয়া যাচ্ছে, এর দাম অনেক বেশি। সব মিলিয়ে তিন শিফটে উৎপাদন সচল রাখা সম্ভব হচ্ছে না। লোকসান এড়াতে স্থায়ী শ্রমিকদের দিয়ে এখন দুটি শিফটে কাজ চলবে। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে কারখানার কার্যক্রমও পূর্ণ উদ্যমে শুরু করা হবে। তখন বদলি শ্রমিকরা কাজে যোগ দিতে পারবেন।

মিলের নির্বাহী পরিচালক বলেন, মিলের শ্রমিকদের প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার পাওনা পরিশোধ করে দেওয়া হয়। বদলি শ্রমিকদের পাওনা বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরপরও যদি কেউ তাদের মজুরি না পান, তাহলে মিলে যোগাযোগ করলে পরিশোধ করা হবে।

পাটকলের সিবিএ সভাপতি আবদুস সালাম জানান, অভ্যন্তরীণ বাজারে গুণগত মানের পাট পাওয়া যাচ্ছে না এবং পাটের দামও অনেক বেশি। তাছাড়া বৈদেশিক অর্ডারও কমে গেছে। যে কারণে উৎপাদন সীমিত করেছে কর্র্তৃপক্ষ।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.