বিশ্বকাপের ধকল পোহাতে হচ্ছে মরুভূমির উটকে

কথায় বলে, কারো পৌষমাস আর কারো সর্বনাশ। সেটাই ঘটছে এবারের কাতার বিশ্বকাপ আসরে। শুধু কাতার না, সারা মধ্যপ্রাচ্য জমজমাট হয়ে ওঠেছে আসর উপলক্ষে। প্রিয় দেশের খেলা দেখতে পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে এসেছে ভক্তরা। অতিথি আপ্যায়নে কাতারেরও আগ্রহের কমতি নেই। তবে সেই মেহমান-আয়োজকের উদযাপনের মাঝখানে বলির পাঠা হচ্ছে সেখানকার উটগুলো।

বার্তা সংস্থা এপির প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় দশ লাখ মানুষ এই মৌসুমে কাতার ভ্রমণ করেছে। খেলা দেখাই তাদের শেষ কথা না। কাতারের সংস্কৃতির সাথে পরিচিত হওয়ার আকাঙ্ক্ষায় বেড়িয়ে পড়ছে এদিক ওদিক। সেই আকাঙক্ষায় যুক্ত হয়েছে উটের পিঠে ভ্রমণের স্বাদ। ভাড়াটে উটের পিঠে চড়ে সেলফি তুলছে তারা। স্বাভাবিক ভাবেই বিরতিহীন খেটে যাচ্ছে উটগুলো। পরিশ্রমে ক্লান্ত হয়ে পড়লেও ওঠানো হচ্ছে জোর করেই।

৪৯ বছর বয়সী উটচালক আলি জাবের আল আলি। তিনি স্বীকার করেছেন উট ভাড়ার ব্যবসায় লাভের কথা। তবে পরিশ্রমের কথাও গোপন করেননি। আলি সুদান থেকে ১৫ বছর আগে কাতারে এসেছেন। ছোটবেলা থেকেই উট নিয়ে কারবার। তার ভাষ্য অনুযায়ী, যেখানে আগে দিনে বিশটি এবং ছুটির দিনে পঞ্চাশটির মতো রাইডের সুযোগ দিত কোম্পানি। উটের সংখ্যা ছিল মোট ১৫টি। বিশ্বকাপ শুরুর পর উটের সংখ্যা হয়েছে ষাট। আলি আর সহযোগী মিলে সকালে ৫০০ এবং বিকালে ৫০০ রাইড দেয়। দীর্ঘ দিন পেশায় থাকার কারণে উট ক্লান্ত হলে আলি বুঝতে পারে। মুখের ভাব পরিবর্তন হয়ে যায়। ওঠতে অগ্রাহ্য করে। আলির দাবি, ‘আমি বেদুইন। উট লালন পালন করা বেদুইন পরিবারের সন্তান। আমি তাদের ভালোবেসেই বেড়ে ওঠেছি।’

ট্যুর গাইডের তাড়াহুড়ার প্রবণতা উটের উপর চাপ তৈরি করে। চারপাশে ভিড় থাকার কারণে অনেক উটই স্থির হয়ে পড়ে। ছোট্ট রাইড দশ মিনিটের, আর বড় রাইডগুলো বিশ থেকে তিরিশ মিনিট হতে পারে। আগে আলি প্রতি পাঁচ রাইডের পরে উটকে বিশ্রামে রাখতেন। এখন পর্যটকদের তাড়াহুড়া। তাদের নানা পরিকল্পনা থাকে। বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার পর থেকে উটগুলো পনেরো থেকে বিশটা, এমনকি চল্লিশটা পর্যন্ত রাইড দিচ্ছে বিশ্রামবিহীন। ভোর সাড়ে চারটার দিকে উঠেই উট প্রস্তুত করে আলি। কিছু পর্যটক সূর্যোদয়ের সময় আসে ছবি তুলতে। সেভাবে চলতে থাকে কাজ। মাঝ দুপুর থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত বিশ্রাম। তারপর আবার প্রস্তুতি নিতে হয় বিকেলের।

উপসাগর অঞ্চলে যাতায়াত ব্যবস্থা ও বাণিজ্য বহরের প্রধানতম বাহন ছিল উট। বর্তমানে তা অবসর যাপনের খোরাকে পরিণত হয়েছে। আর উটের রেস পরিণত হয়েছে জনপ্রিয় খেলায়।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.