‘এই সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন কোনো সুষ্ঠু বিচার আশা করেন না’

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন কোনো সুষ্ঠু বিচার আশা করেন না গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ও প্রয়াত অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া।

বাবার ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আজ শুক্রবার সকালে বনানী কবরস্থানে পরিবারের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ, কবর জিয়ারত শেষে মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন।

শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যার বিচারে দীর্ঘসূত্রিতার বিষয় তুলে ধরে রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘দুই বছর তত্ত্বাবধায়ক সরকার, দুই বছর বিএনপি সরকার ও ১৪ বছর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থেকেও এই হত্যার কোনো বিচার হয়নি। এ থেকে সহজেই অনুমান করা যায়, তারা চেষ্টা করেছেন মিথ্যা তদন্ত, মিথ্যা মামলা দিয়ে আসল খুনিদের আড়াল করতে। তাই আমি মনে করি, শেখ হাসিনা ওয়াজেদ যে শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন সেখানে আইনের শাসন ও সুষ্ঠু বিচারের আশা করা কঠিন।’

গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন দলের সদস্য সচিব ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। তিনি বলেন, ‘শহীদ শাহ এ এম এস কিবরিয়ার মতো একজন গুণী মানুষকে হত্যা করা হলো, অথচ ওনার হত্যার বিচার করছে না এই আওয়ামী সরকার, যিনি এই আওয়ামী লীগকে খাদের কিনারা থেকে টেনে এনে ক্ষমতায় বসতে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছেন। বিচার প্রক্রিয়া বার বার পেছানোর কারণে আমাদের মনে একটি সন্দেহ দেখা দিয়েছে যে শাহ এ এম এস কিবরিয়ার হত্যাকাণ্ডের সাথে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী জড়িত কি-না?

এ সময় আরও বক্তব্য দেন গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম সদস্য সচিব তারেক রহমান, যুব অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক মঞ্জুর মুর্শেদ মামুন ও শ্রমিক অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুর রহমান। পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন শাহ এ এম এস কিবরিয়ার পুত্রবধূ সিমি কিবরিয়া ও চাচাতো ভাই শাহ আজাদ আলী সুমন।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে জনসভা শেষে বের হওয়ার পথে গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হন কিবরিয়া। চিকিত্সার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ওই ঘটনায় কিবরিয়ার ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা, আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা আবদুর রহিম, আবুল হোসেন ও সিদ্দিক আলী নিহত হন। আহত হন আরো ৭০ জন।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.