রমজানে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে

রমজান মাসে বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দামে লাগাম টানা সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘‌পবিত্র রমজান মাসে মূল্যস্ফীতি সহনীয় পর্যায়ে থাকবে এবং বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দামে লাগাম টানা সম্ভব হবে।’

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে গতকাল প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ কথা জানান। সরকারদলীয় সংসদ সদস্য আলী আজমের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, সরকারি বিভিন্ন পদক্ষেপের ফলে দরিদ্র জনগোষ্ঠী বিশেষ করে দরিদ্র পরিবার, বয়স্ক, বিধবা ও স্বামীর দ্বারা নিগৃহীত নারীসহ নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনযাত্রায় স্বস্তি আসবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনগণের সরকার। তাই জনগণের কষ্ট লাঘবে সরকার সবসময় সচেষ্ট। সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সব কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এরই মধ্যে আমরা ভোগ্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি অনেকাংশে সংযত করতে পেরেছি। বিশ্ববাজারে কয়েকটি পণ্য যেমন জ্বালানি তেল, ভোজ্যতেল, গম, সারসহ বিভিন্ন খাদ্যপণ্য, ভোগ্যপণ্য ও শিল্পের কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধি পাওয়ায় দেশে আমদানিজনিত মূল্যস্ফীতির চাপ অনুভূত হচ্ছে। মূল্যস্ফীতি কমাতে বিভিন্ন শুল্কছাড় দেয়া হচ্ছে।’

ইচ্ছাকৃতভাবে কেউ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিরোধী দলের চিফ হুইপ মুজিবুল হক চুন্নুর সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‌রমজানে মোবাইল কোর্টসহ প্রত্যেকটা এলাকা পরিদর্শন করা হয়, আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হয়। তার পরও যদি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে আমি একটা কথা বলি, রমজান কৃচ্ছ্রসাধনের মাস। সে সময় কেন যেন আমাদের খাওয়াটা একটু বেড়ে যায়। আসলে সেজন্য তো রমজান না, রমজান হচ্ছে সংযমের মাস, সংযম করতে হবে। এখন বিশেষ কোনো একটা জিনিস না খেলেই রমজান আর হবে না, রোজা রাখা যাবে না বা ইফতার খোলা যাবে না এ মানসিকতা বদলাতে হবে।’

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘‌আগামী রোজায় দ্রব্যমূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখার অভিপ্রায়ে নিত্যপণ্যের পর্যাপ্ত জোগানের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। অন্যতম নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য হিসেবে ভারত সরকারের কাছ থেকে এক লাখ টন চিনি এবং ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ সরবরাহের জন্য কূটনৈতিক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর বাইরেও কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দৈনিক ভিত্তিতে কৃষিপণ্যের বাজারদর প্রকাশ করা হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা জানান, আসন্ন পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে নিম্ন আয়ের মানুষের নিরাপদ প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণ ও দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখার লক্ষ্যে ঢাকা মহানগরীর ২৫টি স্পটে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে সুলভমূল্যে দুধ, মাংস ও ডিম বিক্রির পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

এছাড়া পবিত্র রমজান উপলক্ষে আমদানিসংশ্লিষ্ট শুল্ক স্টেশনগুলো ভোজ্যতেল, চিনি, ছোলা, মসুর ডাল ও খেজুর দ্রুত খালাস করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখা এবং বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, দপ্তর বা সংস্থা এবং ব্যবসায়ী নেতাদের অংশগ্রহণে সভাগুলোয় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের আন্তর্জাতিক বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা, অভ্যন্তরীণ চাহিদা নির্ণয়, স্থানীয় উৎপাদন, মজুদ পরিস্থিতি, আমদানির পরিমাণ ইত্যাদি ধারাবাহিকভাবে পর্যালোচনা এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখার জন্য জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃক ঢাকা মহানগরীসহ সারা দেশে সব জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য যৌক্তিক পর্যায়ে রাখার জন্য সারা দেশে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে জেলা ও উপজেলায় গঠিত জেলা ও উপজেলা টাস্কফোর্স নিয়মিত সভা করে থাকে। ওই টাস্কফোর্স জেলা ও উপজেলার বাজারগুলোয় নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি নিরবচ্ছিন্ন করার লক্ষ্যে আমদানির এলসির সর্বনিম্ন মার্জিন গ্রহণসহ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভোগ্যপণ্যের এলসি খোলার জন্য এবং প্রয়োজনীয় ডলার সরবরাহ রাখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সব ব্যাংককে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জানান, অসাধু ব্যবসায়িক সিন্ডিকেট যাতে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে খাদ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে সে লক্ষ্যে প্রতিটি মিলের পাক্ষিক মিলিং ক্ষমতা ধানের ক্ষেত্রে পাঁচ গুণ থেকে কমিয়ে তিন গুণ করা হয়েছে। মজুদ রাখার এ বিধান সংশোধন করায় বাজারে ধানের সরবরাহ বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে এবং অবৈধ মজুদ রোধ করা সম্ভব হচ্ছে। এছাড়া কভিড-১৯ ও পরবর্তী যুদ্ধ-বিগ্রহ বিশ্বব্যাপী পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থাকে অস্থিতিশীল করার প্রেক্ষাপটে খাদ্য সংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশের জন্য নিত্যপণ্যের বৃহত্তম জোগানদাতা দেশ ভারত থেকে সম্ভাব্য আমদানির ক্ষেত্রে বার্ষিক সুনির্দিষ্ট কোটা নির্ধারণের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এ লক্ষ্যে উভয় দেশের মধ্যে এ-সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারক সম্পাদনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হলে চাল, গম, চিনি, ডাল, পেঁয়াজ, রসুন, আদা ইত্যাদি নিত্যপণ্য ভারত থেকে আমদানির ক্ষেত্রে বার্ষিক একটি সুনির্দিষ্ট সরবরাহ নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের করা প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রেলপথের উন্নয়নে গত ১৫ বছরে দেশে ৯৪৮ কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণ করা হয়েছে।’

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.