সৌদি যেতে সাত থেকে আট লাখ টাকা নেওয়া হচ্ছে

indexসৌদি আরবে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য নির্ধারিত ব্যয় ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা করা হলেও তা মানা হচ্ছে না। এই খরচ ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে। গতকাল বুধবার প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটি এ অভিযোগ করেছে।

সংসদ ভবনে গতকাল প্রবাসীকল্যাণ কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তবে বৈঠকে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বলেছেন, এমন ঘটনার প্রমাণ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৈঠক শেষে কমিটির একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে এই তথ্য জানা গেছে।
বৈঠক সূত্র জানায়, কমিটি সদস্য ইসরাফিল আলম অভিযোগ করেন, তাঁর নির্বাচনী এলাকার অনেকেই সৌদি আরব যেতে ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যয় করেছেন। জবাবে মন্ত্রী এ ঘটনার প্রমাণ হাজির করার অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, প্রমাণ পেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৈঠকের কার্যপত্র থেকে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১০ আগস্ট থেকে সৌদি আরবে বাংলাদেশের শ্রমিক নিয়োগের বাধা দূর করা হয়েছে। ২০০৮ সাল থেকে এটা বন্ধ করা হয়েছিল। এ বিষয়ে সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের নেওয়া পদক্ষেপ, ইতালির শ্রমবাজার পুনরায় খুলে দেওয়ার জন্য দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা চুক্তি, গুলশান-২ থেকে গামকার (মধ্যপ্রাচ্যে যেতে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষাকেন্দ্র) অফিস স্থানান্তর ও গাজীপুরের কড্ডার নন্দনে আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণকেন্দ্র প্রতিষ্ঠার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা হয়। কমিটির বৈঠকে সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ায় গমনেচ্ছু কর্মীরা যেন দালালদের মাধ্যমে প্রতারিত না হন এবং নির্ধারিত অভিবাসন ব্যয়ে সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ায় যেতে পারেন, সে বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন ও নিশ্চিত করার বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করে। এ ছাড়া স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য বিদেশগামী কর্মীদের হয়রানির শিকার হওয়া এড়াতে মন্ত্রণালয়কে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য শাহাব উদ্দিন, ইসরাফিল আলম, আয়েন উদ্দিন ও মাহজাবীন মোরশেদ অংশ নেন। এ ছাড়া বিশেষ আমন্ত্রণে উপস্থিত ছিলেন প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.