ভারতকে সিরিজ এনে দিলেন সেই ধোনিই

ভারতকে সিরিজ এনে দিলেন সেই ধোনিই।

মহেন্দ্র সিং ধোনি নাকি ফুরিয়ে গেছেন, আগের মতো তার ব্যাটে আর ধার নেই। ভারতকে দুটি বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়কও তাই ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপের আগের অনিশ্চয়তায়, দলে জায়গা পাব তো!

রিশাভ পান্ত ঘাড়ের উপর নিঃশ্বাস ফেলছেন। ধোনিকে নিয়ে সমালোচনা এমন পর্যায়ে চলে গিয়েছিল যে, আজ তাকে বাদ দিলেই বোধ হয় কাল থেকে সুন্দর টিম কম্বিনেশন পেয়ে যাবে ভারত।
তবে ৩৭ বছর বয়সে দাঁড়িয়েও যে তিনি ফুরিয়ে যাননি, সেটা দেখিয়ে দিলেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কঠিন ওয়ানডে সিরিজে। অজিদের মাটিতে তিন ম্যাচের সিরিজের সব কটি ম্যাচেই ফিফটি করলেন, এর মধ্যে শেষ দুই ম্যাচেই অপরাজিত ধোনি। ঠিক যেন সেই পুরোনো ‘ফিনিশার’!

মেলবোর্নে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে এই ‘ফিনিশার’ ধোনির ব্যাটে ভর করেই অস্ট্রেলিয়াকে ৪ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে ভারত। এই জয়ে তারা ২-১ ব্যবধানে নিশ্চিত করেছে সিরিজের ট্রফিটাও।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইয়ুজবেন্দ্র চাহালের ঘূর্ণিতে ২৩০ রানেই গুটিয়ে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস। এক পিটার হ্যান্ডসকম্ব ছাড়া দলের পক্ষে ফিফটিও করতে পারেননি কেউ। হ্যান্ডসকম্ব করেন ৫৮ রান। উসমান খাজা ৩৪ আর শন মার্শের উইলো থেকে আসে ৩৯ রান।

৪২ রান খরচায় একাই ৬ উইকেট নেন চাহাল। দুই পেসার ভুবনেশ্বর কুমার আর মোহাম্মদ শামি পান দুটি করে উইকেট।

জবাব দিতে নেমে ১৫ রান তুলতেই রোহিত শর্মার উইকেট হারিয়ে ধাক্কা খেয়েছিল ভারত। শেখর ধাওয়ানও ২৩ রানের বেশি এগোতে পারেননি। তবে চার নাম্বারে নামা ধোনি খেলেছেন একেবারে দেখেশুনে।

তৃতীয় উইকেটে বিরাট কোহলিকে নিয়ে ৫৪ রানের জুটি গড়েন ধোনি, যে জুটিতে কোহলিরই অবদান বেশি। ৪৬ রান করে কোহলি ফেরার পরই হাত খুলে খেলতে শুরু করেন ধোনি। কেদর যাদবকে নিয়ে চতুর্থ উইকেটে ১২১ রানের জুটিতে দলকে একেবারে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন ভারতের উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান।

১১৪ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ধোনি খেলেন হার না মানা ৮৬ রানের ইনিংস। ৫৭ বলে ৭ চারে ৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন কেদর যাদব।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.