তিন সপ্তাহের জন্য ‘শাটডাউন’ বন্ধের ঘোষণা ডোনাল্ড ট্রাম্পের

তিন সপ্তাহের জন্য ‘শাটডাউন’ বন্ধের ঘোষণা ডোনাল্ড ট্রাম্পের।

টানা ৩৫ দিন অচলাবস্থার পর যুক্তরাষ্ট্রে ‘শাটডাউন’ বা সরকারের অচলাবস্থা ৩ সপ্তাহের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শাটডাউনের ৩৫ তম দিন শুক্রবার হোয়াইট হাউসে এ ঘোষণা দেন তিনি।

এ দিন তিনি ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারি সংস্থায় তহবিল যোগানোর বিষয়ে চুক্তিতে পৌঁছানোর ঘোষণা দেন ট্রাম্প। এ সময়ের মধ্যে মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে অর্থ বরাদ্দ না পেলে বা যথাযথ চুক্তি না হলে ফের শাটডাউনের হুমকি দেন তিনি।
শুক্রবার হোয়াইট হাউসের গোলাপ বাগানে ট্রাম্প বলেন, চুক্তি অনুযায়ী আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারি কার্যক্রমে অর্থায়ন নিশ্চিত হয়েছে। যেসব সরকারি কর্মচারী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের ‘অভাবনীয় দেশপ্রেমিক’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, তারা পূর্ণ মজুরি পাবেন।
২২ ডিসেম্বর থেকে অচল মার্কিন প্রশাসনের একাংশ। অর্থ বরাদ্দ নিশ্চিত না হওয়ায় বাধ্যতামূলক ছুটি বা বেতন ছাড়াই কাজ করতে বাধ্য হচ্ছেন লাখ লাখ সরকারি কর্মী। সরকারি অর্থ বরাদ্দের কোনো প্রস্তাব কার্যকর করাতে সংশ্লিষ্ট বিলকে দুই কক্ষের অনুমোদন ছাড়াও পেতে হয় প্রেসিডেন্টের সম্মতি।
সর্বশেষ অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাবে দেয়াল নির্মাণে ৫০০ কোটি ডলার বরাদ্দে ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতারা একমত না হওয়ায় তাতে সম্মতি দিতে অস্বীকার করেন ট্রাম্প। হাউস অব রিপ্রেজেন্টিটিভে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকায় বিল পাস করাতে ডেমোক্র্যাটদের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে ট্রাম্পকে।
সীমান্ত দেয়াল নির্মাণের বরাদ্দ ছাড়া সরকারের অচলাবস্থা কাটাতে ট্রাম্প উদ্যোগী না হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে তার সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে মিলিত হন মার্কিন কংগ্রেসের নেতারা। বৈঠকে অংশ নেয়া শীর্ষস্থানীয় নেতারা জানিয়েছিলেন, তারা ট্রাম্পের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছেন যে, কেন তিনি সরকারের বিদ্যমান অচলাবস্থার অবসান ঘটাচ্ছেন না?
সিনেটরদের সঙ্গে এই বৈঠকের পর টুইটারে দেয়া এক পোস্টে ট্রাম্প জানান, তিনি ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত। এর আগে একাধিক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, দেয়াল নির্মাণের পরিকল্পনার বিকল্প হবে মেক্সিকো থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া।
এর ফলে মার্কিন গাড়ি কোম্পানিগুলো মেক্সিকোতে থাকা তাদের কারখানা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হবে বলেও সতর্ক করেন তিনি। গত অক্টোবরেও ওই সীমান্ত বন্ধের হুমকি দিয়েছিলেন ট্রাম্প। মার্কিন সীমান্তে আসা অবৈধ অভিবাসীদের ঢল থামাতে লাতিন আমেরিকার সরকারগুলোর ওপর চাপ তৈরিতেই ওই হুমকি দিয়েছিলেন তিনি।
টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘যদি প্রগতিবিরোধী ডেমোক্র্যাটরা দেয়াল নির্মাণ শেষ করার অর্থ না দেয় তাহলে আমরা দক্ষিণাঞ্চলীয় সীমান্ত পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে বাধ্য হব।’

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.