‘প্রধানমন্ত্রী যখন ভোট চান, হাতে কিছু থাকে না’

‘প্রধানমন্ত্রী যখন ভোট চান, হাতে কিছু থাকে না’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী যখন ভোট চান, তখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্টরা যে মেসেজ পাচ্ছে, তাতে তাদের হাতে কিছু থাকে না।

ঢাকার দুই সিটি ভোট গ্রহণ শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সকালে সিটি নির্বাচনে ভোট দিয়ে তার দলের প্রার্থীর পক্ষে ভোট চান নগরবাসীর কাছে। দেশের সর্বোচ্চ জায়গা থেকে এভাবে যদি নির্বাচনকে প্রভাবিত করা হয়, এরপর আর কিছু থাকে না। প্রার্থীকে পাশে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যখন ভোট চান, তখন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ইসির কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্টরা যে মেসেজ পাচ্ছে, তাতে তাদের হাতে কিছু থাকে না, সংশ্লিষ্ট কারো কোনোও ভূমিকা রাখার সুযোগ নেই। তারা নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারবে না।

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ে তিনি বলেন, ইভিএম নিয়ে বিতর্ক এমন এক জায়গায় এসে পৌঁছেছে যে কেউ আর ভোট দিতে আসছে না। সত্যি কথা বলতে কী, মানুষের মনে একটা বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। পুরো নির্বাচন ব্যবস্থার ওপর অনাস্থা সৃষ্টি করতে ইভিএম একটি বড় ভূমিকা রাখছে। সেটা প্রমাণ হয়েছে যে, এক শতাংশ ভোট দেওয়ার ক্ষমতা প্রিজাইডিং অফিসারের রয়েছে। যাদের আঙুলের ছাপ মিলবে না তাদের ভোট দেওয়ানোর ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে প্রিজাইডিং অফিসারকে। কিন্তু সেটি খুলে দেওয়া হয়েছে। ইভিএম ব্যবহারে পেছনে একটি অসৎ উদ্দেশ্যে ছিল সেটি প্রমাণ হয়েছে। চট্টগ্রামের উপ-নির্বাচন ছিল পাইলট প্রকল্প। আজ পুরোপুরি কার্যকর হয়েছে।

বিএনপি নেতা আমীর খসরু বলেন, ইভিএম মেশিনে ধানের শীষের প্রতীক পাওয়া যায়নি। অনেক ইভিএম নষ্ট। যেখানে ইভিএম কাজ করছে সেখানে পাঁচ শতাংশ, ১০ শতাংশ ভোট। আর যেখানে ইভিএম কাজ করছে না সেখানে বেশি। আমাদের দুই প্রার্থী শত শত অভিযোগ করেছে, কোনো অভিযোগের প্রতিকার পাইনি।

বিএনপি ভোট প্রত্যাখ্যান করবে কিনা জানতে চাইলে খসরু বলেন, ভোট বিএনপি মেনে নেবে কিনা সেটা বড় কথা নয়, দেশের মানুষ মেনে নেবে কিনা সেটাই বড় কথা। মানুষ তাদের অধিকার ফিরে পাবে কিনা সেটাই প্রশ্ন।

নির্বাচনের ফলাফল মেনে নেবেন কিনা জানতে চাইলে খসরু বলেন, বিএনপি দেশের মালিক নয়, জনগণ দেশের মালিক। এ ভোট জনগণ মেনে নেবে কিনা গণতন্ত্রকামী মানুষ মেনে নেবে কিনা, সেটাই হচ্ছে প্রশ্ন।

শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.