‘বাংলাদেশিদের স্বার্থে চীনে আমাদের ফ্লাইট চলবেই’

‘বাংলাদেশিদের স্বার্থে চীনে আমাদের ফ্লাইট চলবেই’

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, আমরা চীনে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের সহযোগিতার জন্য আমাদের ফ্লাইট অব্যাহত রাখব। চীন থেকে যারা আমাদের ফ্লাইটে দেশে ফিরছেন তাদের ৯০ শতাংশই বাংলাদেশি। তাদের ফিরিয়ে আনার জন্যই আমরা ফ্লাইট পরিচালনা করছি। বাংলাদেশিদের স্বার্থে আমাদের ফ্লাইট চলবেই।

রোববার সিলেটের পর্যটন মোটেলে নতুন এটিআর এয়ারক্রাফট উদ্বোধনের পর এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকের প্রশ্ন ছিল- চীন রুটে যাত্রী আসছে, তবে তেমন কেউ যাচ্ছে না। এতে এয়ারলাইন্স ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কি না? ইউএস-বাংলা ঢাকা থেকে গুয়াঞ্জু রুটের ফ্লাইট অপারেশন বন্ধ করবে কি না? উত্তরে এসব কথা বলেন ইউএস-বাংলা সিইও।

শিগগিরই সিলেট, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর ও সৈয়দপুরসহ বিভিন্ন রুটে কানেক্টিং (কানেক্টিভিটি) ফ্লাইট চালু করা হবে বলেও জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে এটিআর ৭২-৬০০ এর সেফটি ও বৈশিষ্ট্য নিয়ে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের চিফ অব ট্রেনিং সিনিয়র ক্যাপ্টেন মশিউল আজম। তিনি বলেন, ইউএস-বাংলার ১০ জন পাইলটকে বিদেশি প্রশিক্ষক দ্বারা প্রশিক্ষণ করানো হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানের চিফ অব ফ্লাইট সেফটি ক্যাপ্টেন শামস বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানের সবচেয়ে বেশি প্রায়োরিটি হচ্ছে সেফটি। একটি ডমেস্টিক বিমানবন্দরে ১০ হাজার ফিটের রানওয়ে থাকাটা স্ট্যান্ডার্ড। বাংলাদেশের রানওয়ের সাড়ে ছয় হাজার ফিট। তবে নতুন এই এটিআর এয়ারক্রাফট বাংলাদেশের এই ছোট রানওয়ের মধ্যেও ওঠানামায় সক্ষম।

এছাড়াও কোনো এয়ারক্রাফটে যদি ইমার্জেন্সি সিচুয়েশন হয় তাহলে পাইলটকে ম্যানুয়েলি বই দেখে সিচ্যুয়েশন হ্যান্ডেল করতে হয়। তার যতই নিয়মকানুন জানা থাকুক, তাকে বই দেখতে হবেই। তবে নতুন এই এয়ারক্রাফটের ইমার্জেন্সি হলে ককপিটের মনিটরের বামে কী করতে হবে সেই কমান্ড চলে আসবে।

সংবাদ সম্মেলনে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট অপারেশন পরিচালক মনিরুল হক জোয়ারদার ও মহাব্যবস্থাপক (পাবলিক রিলেশন্স) মো. কামরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.