পর্তুগালে আতঙ্কে প্রবাসীরা

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশির মধ্যে আতঙ্ক বাড়ছে। সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ।
বাইরে চলাচলের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন পর্তুগালে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশি চিকিৎসকরা।

সোমবার পর্তুগালের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গোটা ইউরোপে এখন আতঙ্কের নাম ‘ওমিক্রন’।
প্রাথমিকভাবে বি.১.১.৫২৯ নামে এই ধরণটি ৯ নভেম্বর সংগৃহীত একটি নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে।
ভাইরাসটি পর্তুগালে ১৩ জনের শরীরে শনাক্ত হয়েছে।
তারা বেলেনেনসেস এএসডি ফুটবল দলের খেলোয়াড়।
সম্প্রতি তাদের মধ্যে একজন দক্ষিণ আফ্রিকা ভ্রমণ করেছিলেন।

এদিকে পর্তুগালসহ ইইউর সদস্যভুক্ত দেশগুলো তাদের নাগরিক ব্যতীত দক্ষিণ আফ্রিকা, নমিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, অ্যাঙ্গোলা, মোজাম্বিক, মালাউই, জাম্বিয়া, লিসোথো এবং এসওয়াতিনি থেকে বিদেশি নাগরিকদের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করেছে।

নতুন বিধিনিষেধ হিসেবে নিয়মিত করোনা পরীক্ষা, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে টেলিওয়ার্ক, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত ব্যতিক্রম বাদে সব বদ্ধ স্থানে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়া রেস্টুরেন্ট, পর্যটনকেন্দ্র বা আবাসিক হোটেল-মোটেলসহ পর্যটন আবাসিক কেন্দ্রে চিহ্নিত আসনের কোনো ইভেন্ট বা জিমনেসিয়ামে ইইউ কোভিড ডিজিটাল সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.