ভিসা ছাড়াই যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ করতে পারবে ইসরায়েলিরা

ভিসা ছাড়াই ইসরায়েলিদের যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণের সুযোগ দেবে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন। ফিলিস্তিনি ও আরব বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিকদের প্রতি ইসরায়েলের বিরূপ আচরণের অভিযোগ থাকার পরও ইসরায়েলিদের জন্য এই সুযোগ দিতে যাচ্ছে বাইডেন প্রশাসন। ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এলি কোহেন এক টুইটে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

গতকাল সোমবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে (সাবেক টুইটার) শেয়ার করা এক টুইটে ভিসা ছাড়াই যুক্তরাষ্ট্রে ইসরায়েলিদের ভ্রমণের বিষয়ে এলি কোহেন বলেন, ‘আমাদের যেমনটা প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, আগামী নভেম্বর থেকে ইসরায়েলিরা এই সুযোগ পাবে।’    যুক্তরাষ্ট্র সরকার এখনো এই ‘ভিসা ওয়েভার প্রোগ্রাম’ বা ভিসা ছাড়াই ভ্রমণের সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক মন্তব্য করেনি। তবে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার গতকাল সোমবার বলেছেন, আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্টের (ডিএইচএস) এক মুখপাত্রও একই কথা বলেছেন। তিনি সোমবার আল জাজিরাকে পাঠানো এক ইমেইলে বলেছিলেন, ‘আমাদের এই সময়ে এ বিষয়ে প্রকাশ্যে ঘোষণা করার কিছু নেই। তবে ডিএইচএস ও স্টেট ডিপার্টমেন্ট চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে খুব শিগগিরই।’

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তের ব্যাপক সমালোচনা করেছেন দেশটির আরব বিশ্ব থেকে যাওয়া নাগরিকেরা। এর কারণ হলো, নিয়ম অনুযায়ী যেসব দেশ যুক্তরাষ্ট্রের ‘ভিসা ওয়েভার প্রোগ্রামের’ অন্তর্ভুক্ত হবে, সেই দেশগুলোতে মার্কিন নাগরিকেরা ভিসা ছাড়াই ভ্রমণ করতে পারবে। কিন্তু ইসরায়েল অনেক আগে থেকেই আরব বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিকদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যমূলক আচরণ করে আসছে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.