বিমান দুর্ঘটনার জেরে আটকে পড়েছিলেন amazon জঙ্গলে, ৫ সপ্তাহ পর নিরাপদে ফিরলেন বাড়ি

জীবনে কোনো সমস্যা আমাদের বলে আসেনা, হঠাৎ করেই আমাদের সাথে কিছু হতে পারে। সমস্যার সময় আমাদের মস্তিষ্ক কিছু সময়ের জন্য কাজ করা বন্ধ করে দেয়। আমাদের সাথে এমন ঘটনা ঘটে, যা আমরা কল্পনাও করি না। আন্তোনিও সেনার সাথেও এই ধরনের ঘটনা ঘটে। তাঁর সাথে এমন কিছু ঘটেছিল যে, তিনি বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক জঙ্গলে বেশ কয়েকদিন আটকে ছিলেন, কিন্তু কয়েক সপ্তাহ পর তিনি নিরাপদে সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হন।

পাইলট হওয়া অনেক তরুণের স্বপ্ন। যদিও এই কাজটি খুব ঝুঁকিপূর্ণ, কারণ আপনি যখন একটি বিমান নিয়ে আকাশে উড়ে যান, তখন বিমানে বসে থাকা মানুষের জীবন আপনার হাতে থাকে এবং তাদের জীবনের পুরো দায়িত্ব আপনার কাঁধে পড়ে। এই কারণে বলা হয়, পাইলট হওয়াও যেমন সহজ না, তেমনই একজন পাইলটের দায়িত্ব পালন করা সহজ না। আসলে আজ আমরা ৩৬ বছর বয়সী একজন পাইলট সম্পর্কে বলতে চলেছি, যিনি পাঁচ সপ্তাহ ধরে অ্যামাজনের বিপজ্জনক জঙ্গলে আটকে ছিলেন।

আমরা যে পাইলটের কথা বলছি, তাঁর নাম আন্তোনিও সেনা। আন্তোনিওকে শেষ দেখা গিয়েছিল ২৮শে জানুয়ারি। তারপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। আসলে অ্যান্তোনিও পোর্তুগালের অ্যালেনকার শহর থেকে আলমেরিয়াম শহরে যাচ্ছিলেন। মাঝখানে যান্ত্রিক সমস্যার কারণে তাঁর বিমানটি বিধ্বস্ত হয়, তবে এই ঘটনায় আন্তোনিওর জীবন রক্ষা পায়। জীবন কোনোরকমে রক্ষা পেলেও তিনি অ্যামাজনের বিপজ্জনক জঙ্গলে একা আটকে পড়েন, যেখানে খাবার বা বিশুদ্ধ জলের কোনো ব্যবস্থা ছিলনা।

আন্তোনিওর জন্য এটা আনন্দের বিষয় ছিল যে, তাঁর জীবন রক্ষা পেয়েছিল, কিন্তু কতক্ষণ না খেয়ে কেউ থাকতে পারে। অনেক সমস্যা ছিল, কিন্তু আন্তোনিও হাল ছাড়েননি। আন্তোনিওর মতে, পাঁচ সপ্তাহ ধরে তিনি শুধুমাত্র পাখির ডিম এবং বন্য ফল খেয়েছিলেন, যাতে তিনি নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন। পাঁচ সপ্তাহ পরে উদ্ধারকারী দল আন্তোনিওকে খুঁজে পেতে সক্ষম হয় এবং তিনি নিরাপদে বাড়ি ফিরে আসতে সক্ষম হন। দেশে ফেরার পর চিকিৎসকরাও জানান, তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.