খুব শিগগিরই আরো একটি যুদ্ধ বিমান মিয়ানমারকে রাশিয়া সরবরাহ করতে যাচ্ছে

নতুন একটি যুদ্ধ বিমান সরবরাহ করতে যাচ্ছে রাশিয়া খুব শিগগিরই মিয়ানমারকে। ওই যুদ্ধ বিমানের নাম সুখোই এসইউ-৩০এসএম। এটি সেনাবাহিনীতে যোগ হবে, যা বেসামরিক ও প্রতিরোধ বাহিনীর বিরুদ্ধে মারাত্মক বিমান হামলা চালাবে বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে, খুব দ্রুতই আরও বেসামরিক মৃত্যু দেখতে যাচ্ছে মিয়ানমার। খবর ইরাবতি।

মিয়ানমারের জান্তা সরকারের মুখপাত্র মেজর জেনারেল জাও মিন তুন মঙ্গলবার বলেছেন, অভ্যুত্থান নেতা জ্যেষ্ঠ জেনারেল মিন অং হ্লাইং এই মাসে রাশিয়া সফরের সময় ইরকুস্টস্ক অ্যাভিয়েশন প্ল্যান্টে পরিকল্পনার উৎপাদন ও পরীক্ষা ব্যক্তিগতভাবে পরিদর্শন করেছেন। এগুলো খুব দ্রুতই দেওয়া হবে।

রাশিয়া মিয়ানমারের জন্য ছয়টি যুদ্ধ বিমান তৈরি করছে। ২০১৮ সালে স্বাক্ষরিত প্রায় ২০৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের চুক্তির আওতায় ওই যুদ্ধ বিমানগুলো তৈরি করা হচ্ছে।

প্রথম দুটি জেট এই বছরের মার্চ মাসে মিয়ানমারকে সরবরাহ করা হয়েছিল। বাকি চারটি শিগগিরই সরবরাহ করা হবে বলে মনে করছে দেশটির জান্তা সরকার।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী দীর্ঘদিন ধরে রাশিয়ার সামরিক হার্ডওয়্যারের পৃষ্ঠপোষক। মিন অং হ্লাইং যে কয়েকটি দেশ পরিদর্শন করতে পারেন তার মধ্যে রাশিয়াও একটি, কারণ গত বছরের অভ্যুত্থান থেকে বেশিরভাগ দেশ তাকে এবং তার শাসনকে এড়িয়ে গেছে, যার পরে রক্তাক্ত ক্র্যাকডাউন হয়েছে, যা এ পর্যন্ত দুই হাজারের বেশি বেসামরিক লোককে হত্যা করেছে।

মিন অং হ্লাইং সামরিক দখলের পর থেকে তিনবার রাশিয়া সফর করেছেন এবং রাশিয়ান অস্ত্রের একজন অনুরাগী হিসেবে তিনি বলেছেন ‘আমি সেগুলো পছন্দ করি।’

স্টকহোমের ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, ২০১৫ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত রাশিয়া ২৪৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের অস্ত্র মিয়ানমারের কাছে বিক্রি করেছে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.

EN