দীর্ঘ ৯ মাস পর টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল শুরু

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে দীর্ঘ সাড়ে ৯ মাস পর পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। শুক্রবার সকাল পৌঁনে ১০টার দিকে ৬১০ জন যাত্রী নিয়ে এমভি পারিজাত ও এমভি রাজহংস নামে জাহাজ দু’টি যাত্রা শুরু করে। পর্যটকবাহী জাহাজ দুটি বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নিরাপদে সেন্টমার্টিন দ্বীপে পৌঁছায়।

 

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় জাহাজ চলাচলের সিদ্ধান্ত দেন জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান।

 

জেলা প্রশাসক জানান, বুধবার নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর/দপ্তরের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত সভায় টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচলের বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত হয়, তারই আলোকে শুক্রবার সকাল থেকে দুটি জা াহাজ চলাচলের অনুমতি দেয়া হয় এবং শনিবার থেকে লাইসেন্স ও ফিটনেস আছে- এমন সকল জাহাজ চলবে বলে জানান।

 

জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান জানান, এক্ষেত্রে জাহাজ কর্তৃপক্ষকে কিছু শর্ত দেয়া হয়েছে।

 

শর্তগুলোর মধ্যে রয়েছে, ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নেয়া যাবে না। জাহাজে পর্যাপ্ত ঝুঁড়ি রাখতে হবে, যাতে চিপস বা কোন পলিথিন ও প্লাস্টিক সাগরে না ফেলে এবং প্রতিটি জাহাজে এ বিষয়ে সতর্কতামূলক প্লেকার্ড দিতে হবে। সেন্টমার্টিন দ্বীপের প্লাস্টিক বর্জ্য জাহাজে করে এপারে নিয়ে আসতে সাহায্য করতে হবে। পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য যাতে ধ্বংস না হয় এ বিষয়ে সচেতন করতে জাহাজে প্রচারণা চালাতে হবে। এরকম আরও কয়েকটি অবশ্যই পালনীয় শর্ত সাপেক্ষে জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়েছে। যার ব্যত্যয় ঘটলে অনুমতি বাতিল করা হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

 

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কামরুজ্জামান জানান, আজকে পৌঁনে ১০টার দিকে দু’টি জাহাজ টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেছে।

 

পর্যটকবাহী জাহাজের কক্সবাজারের ব্যবস্থাপক তোফায়েল আহমদ বলেন, চলতি মৌসুমে কিছুটা বিলম্ব হলেও পর্যটক পরিবহন শুরু হয়েছে। প্রতিদিন সকাল সাড়ে ৯টায় টেকনাফের দমদমিয়া জাহাজঘাট থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। আর বিকেল তিনটায় সেন্টমার্টিন থেকে টেকনাফের উদ্দেশে জাহাজ রওনা হবে। প্রথমদিনেই দুটি জাহাজে ৬৭১ জন পর্যটক সেন্টমার্টিন গেছেন।

 

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ছৈয়দ আলম বলেন, টেকনাফ থেকে পর্যটক নিয়ে ছেড়ে আসা জাহাজ দুটি বেলা সাড়ে ১২টায় সেন্টমার্টিন জেটিতে পৌঁছায়। এসময় দ্বীপবাসীর পক্ষে আগত পর্যটকদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়।

 

সাগর উত্তাল হওয়ার পাশাপাশি কালবৈশাখী ঝড়ের আশঙ্কায় দুর্ঘটনা এড়াতে গতবছরের ৩১ মার্চ থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন, সেন্টমার্টিন-কক্সবাজার ও সেন্টমার্টিন-চট্টগ্রাম তিনটি নৌপথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেয় স্থানীয় জেলা প্রশাসন।

 

ওই সময় এ তিনটি নৌপথে ১২টি জাহাজ চলাচল করেছিল। একইবছরের ২৯ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারে আয়োজিত এক সেমিনারে পর্যটনসচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন সেন্টমার্টিন-টেকনাফ নৌপথে নাফ নদীর নাব্যতা সংকট ও একাধিক বালুচর জেগে ওঠার কথা বলে জাহাজ চলাচল বন্ধের ঘোষণা করেছিলেন।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.