তল্লাশির নামে হয়রানি, জনতার হাতে অবরুদ্ধ তিন পুলিশ

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ইয়াবা দিয়ে এক ফার্মাসির মালিককে ফাঁসানোর চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে থানা পুলিশের বিরুদ্ধে।
প্রতিবাদে উত্তেজিত জনতা তিন পুলিশ সদস্যকে আধা ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন।

শনিবার রাতে কমলগঞ্জের আদমপুর ইউনিয়নের মধ্যভাগ বাজারের ‘নিউ মেডিসিন কর্নারে’ এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশের এমন ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
এলাকাবাসী ওই ব্যবসায়ীকে হয়রানির বিষয়টি তদন্ত করে দোষী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় মোটরসাইকেলে আদমপুরের মধ্যভাগ বাজারের নিউ মেডিসিন কর্নারে সাদা পোশাকে আসেন কমলগঞ্জ থানার এসআই সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, এসআই হারুনুর রশীদ চৌধুরী ও কনস্টেবল আফসার উদ্দীন।
ফার্মাসিতে গিয়ে তারা মালিক স্বপন কুমার সিংহকে বলেন, দোকানে ইয়াবা বিক্রি হয় বলে খবর আছে তাদের কাছে। তাই ফার্মাসিতে তল্লাশি করবেন।

তখন ফার্মাসির মালিক মাদক বিক্রির বিষয়টি অস্বীকার করলে পুলিশ সদস্যরা বাগবিতণ্ডা শুরু করেন।
একপর্যায়ে নিজেদের সঙ্গে আনা কয়েক পিস ইয়াবা হাতে নিয়ে ফার্মাসিতে পাওয়া গেছে বলে দাবি করেন।
তখন ফার্মাসির মালিক স্বপন কুমার সিংহ এর তীব্র প্রতিবাদ করেন।
এ সময় আশপাশের লোকজন দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যান।
ফার্মাসির মালিক একজন ভালো মানুষ ও সেখানে কোনো মাদক বিক্রি হয় না বলে স্থানীয়রা দাবি করেন।
এতে পুলিশের দুই এসআই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।
পুলিশের সঙ্গে কথোপকথনে স্থানীয় জনতার মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে কয়েকশ লোক জড়ো হয়ে পুলিশ সদস্যদের ঘেরাও করে সড়ক অবরোধ করেন ও এমন হয়রানিমূলক তল্লাশির প্রতিবাদ জানান।

প্রায় আধাঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকার পর জনতার রোষাণল থেকে বাঁচার জন্য ‘তথ্যগত ভুলের কারণে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা’র দায় স্বীকার করে তিন পুলিশ সদস্য দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

 

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.