বিদেশি এয়ারলাইন্সের আয় বাইরে নেওয়া সহজ হলো

বিদেশি এয়ারলাইন্সের আয় দেশের বাইরে নেওয়া সহজ করলো বাংলাদেশ ব্যাংক। টিকিট বিক্রি এবং কার্গো পরিবহন বাবদ যে আয় হবে তা থেকে প্রয়োজনীয় ব্যয় সমন্বয়ের পর বাকি অর্থ সহজে বিদেশে নেওয়া যাবে।

তবে টিকিট রিফান্ড বাবদ ১০ শতাংশ অর্থ সঞ্চিতি রাখতে হবে। আগে জটিল প্রক্রিয়া অনুসরণ করে শুধুমাত্র বিমান উড্ডয়নের পর অর্থ বাইরে পাঠানো যেতো। বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়।

বৃহস্পতিবারের এ সার্কুলারের মাধ্যমে টিকিট বিক্রির সময় দেশি বিদেশি সব এয়ারলাইনের যাত্রীদের থেকে ঘোষণাপত্র (পি ফরম) নেওয়ার ব্যবস্থা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এছাড়া প্রচলিত জটিল বিবরণীর পরিবর্তে ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন টিকিটের (আইএটিএ) সদস্য বিমানগুলোর তাদের নিজস্ব বিবরণী গ্রহণযোগ্য হবে।

একই সঙ্গে দেশের বাইরে অর্থ পাঠানোর সময় শুধুমাত্র ব্যাংক বিবরণী, করাদি পরিশোধ সংক্রান্ত কাগজপত্র জমা দিলে চলবে। আর ব্যয় বিবরণীর সঙ্গে এখন থেকে আর কোনো ধরনের বিল বা ভাউচার দাখিলের প্রয়োজন হবে না। আইএটিএর সদস্য নয় এমন এয়ারলাইন্সের জন্যও অন্যান্য সহজ বিবরণী জমা দিলে তা গ্রহণযোগ্য হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা  বলেন, বৈদেশিক লেনদেন ব্যবস্থা প্রতিনিয়ত সহজ ও সময়োপযোগী করা হচ্ছে। এর আগে গত জুলাইয়ে বিদেশি কোম্পানির লভ্যাংশ পাঠানোর ক্ষেত্রে ঘটনোত্তর যাচাই বাছাইয়ের নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন সংক্রান্ত আরও বেশ কিছু নিয়ম সহজ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় এয়ারলাইন্সের লেনদেন প্রক্রিয়া সহজ করা হলো।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.