যুক্তরাষ্ট্র রক্ষা করবে তাইওয়ানকে, চীন হামলা চালালে: বাইডেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আবারও বলেছেন চীন ‘অপ্রত্যাশিত হামলা’ চালালে, তাইওয়ানকে রক্ষা করবে যুক্তরাষ্ট্র। রোববার গণমাধ্যমে সম্প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে বাইডেন এ কথা বলেছেন।

মার্কিন গণমাধ্যম সিবিএসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেন, যদি তাইওয়ানের ওপর অপ্রত্যাশিত কোনো হামলা আসে, তাহলে যুক্তরাষ্ট্র তাদের পাশে থাকবে। মার্কিন বাহিনী তাইওয়ানের পাশে থাকবে কিনা—এমন প্রশ্নের উত্তরে বাইডেন সম্মতিসূচক ‘হ্যাঁ’ বলেন।

তবে হোয়াইট হাউস বলেছে, তাইওয়ান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান বদলায়নি। তাইওয়ানের বিষয়ে ওয়াশিংটনের অবস্থান সব সময়ই কৌশলগত।

সিবিএস সিক্সটি মিনিটসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেছেন ‘আমরা ‘‘এক চীন’’ নীতিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। স্বাধীনতার বিষয়ে তাইওয়ানের নিজস্ব বক্তব্য রয়েছে। আমরা তাদের স্বাধীনতায় উৎসাহ দিচ্ছি না।’

গত মে মাসেও একইভাবে তাইওয়ানের পাশে থাকার কথা বলেছিলেন বাইডেন। তিনি সে সময় বলেছিলেন, হামলা হলে তাইওয়ানের পাশে মার্কিন সেনাবাহিনী থাকবে।

গত আগস্ট মাসে তাইওয়ানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সফরকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে। এই সফরের পর বেইজিং তাইওয়ানের চারপাশ ঘিরে সামরিক মহড়া চালায়।

চীন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে নিজেদের স্বাধীন রাষ্ট্র ঘোষণা করলেও তাইওয়ানকে মূল ভূখণ্ডের অংশ মনে করে বেইজিং। এমনকি তাইওয়ানের ক্ষেত্রে ‘এক চীন নীতি’ অনুসরণ করা হয়। বেইজিংয়ের বৈদেশিক সম্পর্ক তাদের ‘এক চীন নীতির’ ওপর অনেকাংশে নির্ভরশীল।

এখন পর্যন্ত মাত্র কয়েকটি দেশ তাইওয়ানকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এমনকি তাইওয়ানের সবচেয়ে ‘প্রভাবশালী মিত্র’ যুক্তরাষ্ট্রও স্বীকৃতি দেয়নি বা তাইপের সঙ্গে ওয়াশিংটনের কোনো আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। তবে যুক্তরাষ্ট্র বরাবরই তাইওয়ানকে রক্ষা করা এবং সামরিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.