‘সৈয়দপুর বিমানবন্দর হবে আঞ্চলিক হাব’

বিনা মাশুলে ট্রানজিটের সার্বিক বিষয় নিয়ে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে সৈয়দপুর এয়ারপোর্টকে আমরা আঞ্চলিক হাব হিসেবে করতে চাচ্ছি, সেখানে নেপাল, ভুটান ও ভারতের যারা, তারা কিন্তু ব্যবহার করতে পারে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সেই ক্ষেত্রে পণ্য পরিবহনের জন্যও যাতে ট্রানজিট সুবিধা আসে, বা আমরা যে হাইড্রো ইলেক্ট্রিসিটি আনবো, সেখানেও তো ট্রানজিট দরকার। কারণ, রোড তৈরি করতে হবে, লোক যাতায়াত করতে হবে।

বুধবার গণভবনে সাম্প্রতিক ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে  এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমাদের ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে যোগাযোগ রাখতে গেলে ট্রানজিট একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। আর ভারতেরও নিজেদের যোগাযোগের সুযোগ, ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়তে পারে। ভুটান, নেপাল, ভারত, বাংলাদেশ— এই চারটি দেশের মধ্যে কিন্তু একটা সমঝোতা স্মারক আছে।

যদিও ভুটানের পাহাড়ি এলাকার কারণে বড় বড় ট্রাক ঢুকতে দিতে পারে না। তারপরও আমাদের ব্যবসা বাণিজ্য সহজে করতে পারে, সেটা আমাদের পণ্য ভারতে যাক, ভুটানে যাক, নেপালে যাক— সেই সুবিধা পাওয়া অথবা নেপাল  ও ভুটান থেকে সেই পণ্য আমাদের দেশে আসা। পাশাপাশি আমাদের পোর্ট, চট্টগ্রাম, মোংলা এমনকি এয়ারপোর্ট, আমি তো তাদেরকে বলেছি যে, আপনারা আমাদের এয়ারপোর্টও ব্যবহার করতে পারেন। যেমন- ত্রিপুরাকে আমি বলেছি যে, আমাদের চট্টগ্রাম পোর্ট, এয়ারপোর্ট ব্যবহার করতে পারে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সিলেট অঞ্চল ব্যবহার করার সুযোগ আছে। শুধু এখানেই সীমাবদ্ধ থাকবে না, মিয়ানমার হয়ে থাইল্যান্ড হয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ, ট্রান্সএশিয়ান রেলওয়ে, হাইওয়ের যে কাজ আমরা করছি, সেটারও একটি সুযোগ সৃষ্টি হবে। তবে সব দেশই লাভবান হবে। দরজা বন্ধ করে রাখলে তো লাভ হবে না। খুলে দিলেই মানুষের লাভ হয়, কর্মসংস্থান বাড়ে।’

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.