শিক্ষার্থী নাদিয়ার মৃত্যুতে ফের বিমানবন্দর সড়ক অবরোধ

বাস চাপায় নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী নাদিয়া আক্তারের মৃত্যুর ঘটনায় দ্বিতীয়দিনের মত বিমানবন্দর সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

পুলিশের উত্তরা বিভাগের (বিমানবন্দর) অতিরিক্ত উপ কমিশনার তাপস কুমার দাস জানান, আজ সোমবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করেন, পরে বেলা দেড়টার দিকে অবরোধ তুলে নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ফিরে যান।

“কাওলা এলাকায় বিমানবন্দর সড়কের একাংশ অবরোধ করেছিল শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ তাদের জানায় সকালে চালক ও হেলপারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই খবরে ঘণ্টাখানেক সড়ক আটকে রেখে তারা উঠে যায়।“

বাসের ধাক্কায় ২৪ বছর বয়সী নাদিয়ার মৃত্যু হয় রোববার দুপুরে। এ ঘটনায় রোববারও কাওলা এলাকায় সড়ক অবরোধ করে ভিক্টর পরিবহনের ওই বাসের চালককে গ্রেপ্তার, নাদিয়ার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া, ভিক্টর পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল এবং কাওলা এলাকায় বাস স্টপেজের দাবিতে বিক্ষোভ দেখান নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বন্ধু মেহেদী হাসানের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে যমুনা ফিউচার পার্কে বেড়াতে গিয়েছিলেন নাদিয়া। ভিক্টর পরিবহনের একটি বাস ধাক্কা দিলে নাদিয়া সড়কে ছিটকে পড়েন। পরে ওই বাসের নিচে পিষ্ট হয়ে তার প্রাণ যায়।

ফার্মেসি বিভাগের প্রথম সেমিস্টারের ছাত্রী নাদিয়ার বাড়ি নারায়গঞ্জের ফতুল্লা থানার চাষাড়ায়। তার বাবা জাহাঙ্গীর আলম একটি পোশাক কারখানার সহকারী মহাব্যবস্থাপক। তিন বোনের মধ্যে সবার বড় নাদিয়া এক সপ্তাহ আগেই নারায়ণগঞ্জের বাসা ছেড়ে উত্তরায় একটি হোস্টেলে উঠেছিলেন।

পুলিশ সে সসময় বাসটি আটকাতে পারলেও চালক ও হেলপার পালিয়ে গিয়েছিল। পরে সোমবার ওই বাসের চালক মো. লিটন (৩৪) ও সহকারী আবুল খায়েরকে (২২) ঢাকার বাড্ডা এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.