মালদ্বীপের পথে চীনা গবেষণা জাহাজ, নজর রাখছে ভারত

মালদ্বীপের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে চীনের একটি গবেষণা জাহাজ। আর এ বিষয়টি ভারতের জন্য নতুন চিন্তার উদ্রেক করেছে। নয়াদিল্লির ধারণা, গবেষণা জাহাজের কথা বললেও; এটি আসলে চীনের একটি ‘গোয়েন্দা’ জাহাজ।

ভারতের দ্য ইকোনমিক টাইমস এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে।

মালদ্বীপের সঙ্গে সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের সম্পর্কে অবনতি হয়েছে। এর মধ্যে দেশটিতে চীনের ‘গোয়েন্দা’ জাহাজ যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে ভারতে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

সমুদ্রে চলাচলকারী জাহাজ ট্রেকিংকারী ‘দ্য মেরিন ট্রেকার’ অ্যাপে দেখা গেছে, চীনের জাহাজটি এখন ইন্দোনেশিয়ার উপকূল দিয়ে চলাচল করছে। এর আগে এটি সুন্দা প্রণালি দিয়ে জাভা এবং সুমাত্রার মধ্যবর্তী অঞ্চল দিয়ে চলাচল করেছে।

বিখ্যাত ভূ-স্থানিক বিশেষজ্ঞ ড্যামিয়েন সায়মন মাইক্রো ব্লগিং সাইট এক্সে (সাবেক টুইটার) এক পোস্টে জানিয়েছেন, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে পৌঁছাবে জাহাজটি। তিনি আরও জানিয়েছেন, ২০১৯ ও ২০২০ সালে এই জলসীমায় জরিপ চালিয়েছিল চীনের এ জাহাজ।

কয়েক দিন আগে মালদ্বীপের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জো চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিন পিংয়ের সঙ্গে বেইজিংয়ে বৈঠক করেন। তাঁদের দুজনের মধ্যকার এ বৈঠকের পরই ভারত মহাসাগরের জলসীমায় আসা শুরু করেছে চীনা জাহাজটি।

গত বছর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে মোহাম্মদ মুইজ্জো ‘ভারতবিরোধী’ ক্যাম্পেইন চালান। কয়েক দিন আগে মালদ্বীপে যেসব ভারতীয় সেনা রয়েছে তাদের আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে প্রত্যাহার করে নেওয়ার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন তিনি।

শিয়াং ইয়াং হোং ০৩ নামের এই জাহাজটি একটি ‘গবেষণা জাহাজ’ হিসেবে শ্রেণিবদ্ধ। জাহাজটি সম্পর্কে বলা হয়েছে, এটি ভারত মহাসাগরের তলদেশের ম্যাপিংয়ের কাজ করে থাকে। যেটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করে থাকে। আর এসব তথ্যের মাধ্যমে সমুদ্রের তলদেশের ভূমিকম্পসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। অথবা এসব দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমাতে সহায়ক হবে।

তবে সমুদ্র তলদেশের ম্যাপিং করার বিষয়টি ভবিষ্যতে চীনের সাবমেরিন অথবা ডুবন্ত ড্রোন চলাচলে সহায়ক হবে বলে ধারণা অনেকের।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.