সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির দাবিতে পার্লামেন্ট দখলে নিল সশস্ত্র বাহিনী।

রবিবার এল সালভাদরের পার্লামেন্ট দখল করে নিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট সমর্থিত সশস্ত্র বাহিনীর একটি দল। তবে এমন পরিস্থিতি ছিল অল্প সময়ের জন্য।

বিবিসি, রয়টার্সসহ একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানায়, প্রেসিডেন্ট নায়িব বুকেলে অপরাধী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পুলিশসহ সশস্ত্র বাহিনীগুলোকে উন্নত উপকরণ ও সরঞ্জামে সজ্জিত করতে ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলারের একটি ঋণ অনুমোদনের বিল পার্লামেন্টে প্রস্তাব করেন।প্রেসিডেন্ট নায়িব বুকেলের প্রস্তাবিত বিলটি পাসে পার্লামেন্টের আইন প্রণেতাদের চাপ সৃষ্টি করার জন্য সৈন্যরা পার্লামেন্ট ভবনে প্রবেশ করে।

২০১৯ সালের জুনে এল সালভাদরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন বুকেলে। দেশটিকে দুর্নীতি মুক্ত করা এবং অপরাধী ও সন্ত্রাসী দলগুলোর সহিংসতা দমনের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।পার্লামেন্টে বুকেলে ভাষণ দেওয়ার আগমুহূর্তে সৈন্যরা ভবনটিতে প্রবেশ করে। পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনটিতে তখন অল্প কয়েকজন এমপি উপস্থিত ছিলেন।

মধ্য আমেরিকার দরিদ্র দেশটির বিভিন্ন এলাকা সহিংসতা কর্মকাণ্ডে নিয়ন্ত্রিত করে রেখেছে অপরাধী গোষ্ঠীগুলো। এমনকি খুনের হারে বিশ্বের শীর্ষে থাকা দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম এল সালভাদর।

প্রেসিডেন্ট নায়িব বুকেলে অপরাধী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পুলিশসহ সশস্ত্র বাহিনীগুলোকে উন্নত উপকরণ ও সরঞ্জামে সজ্জিত করতে, হেলিকপ্টারসহ পুলিশের জন্য যানবাহন, বিশেষ পোশাক, নজরদারি সরঞ্জাম ইত্যাদি কিনতে ১০ কোটি ৯০ লাখ ডলারের অর্থ সহায়তা চান তিনি।

এই বিলকে ঘিরে দেশটির আইনপ্রণেতাদের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি হয়। এমন পরিস্থিতিতে পার্লামেন্টে বিশেষ অধিবেশন ডাকেন বুকেলে। যাতে অধিকাংশ এমপিই অনুপস্থিত ছিলেন। এতে কোরাম সংকটে পড়ে পার্লামেন্ট।

এক পর্যায়ে পুলিশ ও সশস্ত্র বাহিনীর একটি দলকে পার্লামেন্ট ভবন ঘেরাও করার নির্দেশ দেন ৩৮ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট।সরকার সমর্থিত ৫০ হাজারের মতো বিক্ষোভকারী রাস্তায় নেমে আসে তখন। পরে প্রেসিডেন্টের নির্দেশে তারা ঘরে ফিরে যায়। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পার্লামেন্টে বিলটি নিয়ে আলোচনা না হলে, তাদের বিক্ষোভকারীদের নেমে আসার আহ্বানও জানান বুকেলে।

তবে বিরোধী দলের অভিযোগ, বুকেলে তাদের প্রতি হুমকি দিচ্ছেন। এমনকি তিনি স্বৈরাচারী মনোভাবের দিকেও ধাবিত হচ্ছেন।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.