সেবাগ্রহীতাকে চেয়ার ছুঁড়ে মারা পাসপোর্টের ‘সেই ডিডি’ বদলি

কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসে আসা সেবাগ্রহীতাদের চেয়ার ছুড়ে মারা এবং সংবাদ সংগ্রহের সময় দুই সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করা কুমিল্লা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের ডিডি (উপ-পরিচালক) মো. নুরুল হুদাকে কুমিল্লা থেকে বদলি করেছে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর।

সোমবার ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, কুমিল্লা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের ডিডি মো. নুরুল হুদাসহ আরও ১১ জন পাসপোর্ট কর্মকর্তাকে বদলির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এতে উল্লেখ করা হয়, ডিডি নুরুল হুদাকে ঢাকা বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসে (সংস্থাপন শাখায়) সংযুক্ত করা হয়েছে। একইসঙ্গে যশোরের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নুরুল হুদাকে কুমিল্লা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক হিসেবে সংযুক্ত করা হয়েছে।

কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক শেখ মাহাবুর রহমান বলেন, এখনও কোনও কাগজপত্র হাতে পাইনি। তাছাড়া এসব বদলি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসের ডিডির বিরুদ্ধে সমন জারি

উল্লেখ্য, গত ১৮ এপ্রিল কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসে গেলে সেবাগ্রহিতা সাকিবসহ তিন জনকে লক্ষ্য করে চেয়ার ছুড়ে মারেন ডিডি নুরুল হুদা। পরে স্থানীয় সাংবাদিকরা ভুক্তভোগীদের থেকে বিষয়টি জানতে পেরে পাসপোর্ট অফিসে খোঁজ নিতে যান। এ সময় তাদেরকেও লাঞ্ছিত করে মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। সেদিন ওই ঘটনার একটি ভিডিও সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে তা আদালতের নজরে আসে।

এ ঘটনায় গত ২৬ এপ্রিল কুমিল্লার ১ নম্বর আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্বাস উদ্দিন র‌্যাবকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে দায়িত্ব পেয়ে পিবিআই ঘটনার তদন্ত করে গত ১২ আগস্ট আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। প্রতিবেদনে প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা মিলে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আদালত ১৬ আগস্ট কুমিল্লার ১ নম্বর আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্বাস উদ্দিন কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক (ডিডি) নুরুল হুদার বিরুদ্ধে ৩২৩ ও ৩৫২ ধারায় অপরাধ আমলে নিয়ে সমন ইস্যুর নির্দেশ দেন। ১৮ সেপ্টেম্বর সমন তামিলের তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত।

আরও খবর
আপনার কমেন্ট লিখুন

Your email address will not be published.